• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে বিতর্কিত লেখা এ কে খন্দকার লেখেন নি, বললেন বীর উত্তম শাহাবউদ্দিন আহমেদ


৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে বিতর্কিত লেখা এ কে খন্দকার লেখেন নি, বললেন বীর উত্তম শাহাবউদ্দিন আহমেদ

আমাদের নতুন সময় : 03/06/2019

জুয়েল খান : বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণকে বিতর্কিত করার জন্য একটা বিশেষ মহল ‘১৯৭১ : ভেতরে বাইরে’ বইয়ের ৩২ নং পৃষ্ঠায় লেখাটা সংযোজন করে। প্রথমা প্রকাশনীর কাছে এ কে খন্দকারের লেখা কোনো পাÐুলিপি নেই বলে মন্তব্য করেন বাংলাদেশ বিমানের সাবেক ক্যাপ্টেন বীর উত্তম শাহাবউদ্দিন আহমেদ।
তিনি বলেন, এ কে খন্দকার যখন পরিকল্পনামন্ত্রী ছিলেন শেষের দিকে তিনি অ্যালঝাইমারে ভুগছিলেন। যার ফলে তার স্মৃতিশক্তি লোপ পায়, তিনি মানুষকে ঠিকভাবে চিনতে পারতেন না। এ সুযোগে প্রথমা কর্তৃপক্ষ তার অজান্তেই বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে বিতর্কিত লেখাগুলো প্রকাশ করে, কোনো বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে। যার ফলে এ কে খন্দকারের অনুরোধ সত্তে¡ও প্রথমা প্রকাশনী লেখাটি প্রত্যাহার করেনি। প্রথমা প্রকাশনী মূলত উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই লেখাটা সংযোজন করেছে। একজন স্বনামধন্য মুক্তিযোদ্ধা এবং গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর নামে যদি এ রকম একটা লেখা ছাপানো হয় তাহলে তাদের উদ্দেশ্য সফল হবে।
তিনি আরো বলেন, অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল প্রথমা প্রকাশনীর কাছে জানতে চেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে একে খন্দকার যে বইটি লিখেছেন সেটার কোনো লিখিত স্ক্রিপ্ট আপনাদের কাছে আছে কিনা? তখন প্রথমা থেকে বলা হয়, একে খন্দকার কোনো স্ক্রিপ্ট লেখেননি। তিনি মুখে বলেছেন, আমরা লিখেছি। সুতরাং সেখানেই বইটির বিতর্কিত অংশ সংযোজন করা হয়েছে।
তিনি জানান, সাবেক মন্ত্রী এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) এ কে খন্দকারের ‘১৯৭১ : ভেতরে বাইরে’ বইটি প্রকাশের পর থেকেই দেশব্যাপী বিকর্তের সৃষ্টি করে। সাম্প্রতিক সময়ে তিনি সাংবাদিক সম্মেলন করে জাতির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে অনাকাক্সিক্ষত মন্তব্যের জন্য বঙ্গবন্ধুর বিদেহী আত্মার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। তিনি প্রথমা প্রকাশনীর কাছে দাবি জানিয়েছেন বইটির ৩২ নং পৃষ্ঠার লেখা প্রত্যাহার করে পুনরায় মুদ্রণ করার জন্য। তিনি নিজে কোথাও লেখেননি যে, ৭ মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু জয় পাকিস্তান বলেছিলেন। একটা বিশেষ মহলের কারণে বিতর্কিত এই লেখাটি ছাপা হয়েছে। বইটি প্রকাশের পরে তিনি প্রথমা প্রকাশনীর কাছে বইটির ৩২ নং পৃষ্ঠার বিতর্কিত কথাটি প্রত্যাহার করার জন্য অনুরোধ জানান, কিন্তু প্রথমা কর্তৃপক্ষ এই বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]