• প্রচ্ছদ » গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ » বাংলাদেশ ভবিষ্যতে সিলিকন ভ্যালির হাইটেক জায়ান্টদের সাথে খেলায়ও বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রাখে বলে জানালেন বিশ^খ্যাত বেস্টসেলার লেখক ও শিক্ষাবিদ ইউভাল নোয়াহ হারারি


বাংলাদেশ ভবিষ্যতে সিলিকন ভ্যালির হাইটেক জায়ান্টদের সাথে খেলায়ও বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রাখে বলে জানালেন বিশ^খ্যাত বেস্টসেলার লেখক ও শিক্ষাবিদ ইউভাল নোয়াহ হারারি

আমাদের নতুন সময় : 08/06/2019

দেবদুলাল মুন্না: গতবছরের  ৩০ আগস্ট প্রকাশিত হয়েছে জেরুজালেম হিব্রু বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, ইতিহাসবিদ ও বেস্টসেলার লেখক ইউভাল নোয়াহ হারারির নতুন বই ২১ ষবংংড়হং ভড়ৎ ২১ ঈবহঃঁৎু. দুনিয়ায় যাদের বই লক্ষ লক্ষ কপি বিক্রি হয় তাদের মধ্যে হারারি অন্যতম। ২১ ষবংংড়হং ভড়ৎ ২১ ঈবহঃঁৎু-নামের বইতে  প্রায় দুই পৃষ্ঠা লিখেছেন বাংলাদেশ নিয়ে ঞযব ঞবপযহরপধষ ঈযধষষবহমব অধ্যায়ের শুরুতেই ডড়ৎশ পরিচ্ছদে। ঠিক একই কথা ফের বললেন ইউভাল নোয়াহ হারারি গত বৃহস্পতিবার আল জাজিরাকে দেওয়া এক ইন্টারভিউতে।

তিনি মনে করেন, গ্লোবাল ভিলেজে বসবাসরত উদীয়মান দেশগুলোর অর্থনৈতিক ভবিষ্যতে প্রযুক্তির পরিবর্তনের সাথে সাথে বিশ্বায়নের স্বরূপ পরিবর্তিত হবে। যারা বাংলাদেশের ভবিষ্যতের রূপকার, যারা ভাবেন দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিয়ে তারা কিছু প্রণোদনা, পথের অনুন্ধান পেতে পারেন এখান থেকে। প্রযুক্তির অগ্রগতির সাথে সাথে অ্যালগরিদম ভিত্তিক অটোমেশন বৃদ্ধি পাবে। এই স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে বিশ্বায়নের নেটওয়ার্ক থেকে তারাই বাদ পড়বে যারা নিজেদের ভবিষ্যৎ দুনিয়ার প্রযুক্তির সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারবে না। বাংলাদেশের মতো যাদের অপ্রতুল প্রাকৃতিক সম্পদ রয়েছে তারা এত দিন বিশ্ব বাজারে নিজেদের স্বল্পদক্ষ শ্রম কম দামে বিক্রি করতে পেরেছে। লক্ষ লক্ষ বাংলাদেশি গার্মেন্টস শ্রমিক ইউরোপ, আমেরিকার জন্য পোশাক বানায়। কিন্তু ভবিষ্যতে যখন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, থ্রি-ডি প্রিন্ট, কম মূল্যে পোশাক তৈরির নতুন প্রযুক্তি আমেরিকার ফিফথ এভিন্যুতে পৌঁছে যাবে তখন এই স্বল্পদক্ষ শ্রমের আর তেমন মূল্য থাকবে না। ফলে, ক্যালিফোর্নিয়ার টেকনো জায়ান্টরা তাদের মেশিন কোডেড আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স আর নতুন নতুন যন্ত্র দিয়ে বাংলাদেশের শ্রমিকদের থেকে বেশি দক্ষ শ্রমিক দিয়ে পোশাক উৎপাদন করবে। গ্লোবালাইজেশনের ফলে দুনিয়ার উন্নত ও অনুন্নত দেশসমূহের যে অর্থনৈতিক উন্নয়ন এত দিন দেখা যেত প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে তার আমূল পরিবর্তন হবে। বহু উন্নয়নশীল দেশের অর্থনীতি ধসে যাবে। তার পরিবর্তে উদীয়মান সিলিকন ভ্যালির হাইটেক জায়ান্টদের আবির্ভাব হবে এবং তারাই হবে এই খেলার মাঠের বিজয়ী দল। বাংলাদেশ কিভাবে এই পরিবর্তিত বিশ্বায়নের নতুন সড়কে সংযুক্ত হতে পারে? হারারির ভাষাতেই বলা যাক :‘বাংলাদেশ বা ভারতের মতো উদীয়মান অর্থনীতির দেশ অবশ্যই এই বিজয়ী দলের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। গার্মেন্টস শ্রমিক ও কল সেন্টার অপারেটরদের দ্বিতীয় প্রজন্মকে ইঞ্জিনিয়ার আর বিনিয়োগকারী হয়ে উঠতে হবে যারা এই সমস্ত কম্পিউটার ও থিডি প্রিন্টারের উদ্ভাবক বা প্রকৃত মালিক।’ সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]