মুসলিম জনসংখ্যা ও অভিবাসী বৃদ্ধিকেহুমকি মনে করেন সুচী ও ভিক্টর অরবান

আমাদের নতুন সময় : 08/06/2019

সুস্মিতা সিকদার : মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচী এবং হাঙ্গেরীর চরম পানপন্থী প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবান মনে করেন অভিবাসী ও মুসলিম জনসংখ্যা বৃদ্ধি দেশ দুটিকে বড় রকমের চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন করছে। সুচী ইউরোপ সফরে গিয়ে বুধবার হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্টে নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হন। ইন্ডিপেনডেন্ট

ওই বৈঠকে দুই নেতা মুসলিম জনসংখ্যা বৃদ্ধির বিষয়টিকে গুরুত্বসহকারে উত্থাপন করেন। তারা বলেন, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং ইউরোপে অভিবাসী বৃদ্ধি একটি বড় সমস্যা, যা দুই দেশকেই সমস্যার সম্মুখীন করছে।

অরবান বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং মিয়ানমারের মধ্যে বাণিজ্যিক সহযোগীতার পক্ষে হাঙ্গেরী ছিলো কিন্তু ইউরোপীয় ইউনিয়ন মিয়ানমারের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে। তারা এখন সেখানে গণতন্ত্র রপ্তানী করতে চায়। তিনি আরো বলেন, ব্রাসেলস মিয়ানমারের আভ্যন্তরীন রাজনৈতিক ইস্যুকে অর্থনৈতিক সহযোগিতার সাথে গুলিয়ে ফেলেছে।

হাঙ্গেরীর চরম ডানপন্থী এই নেতার সাথে অভিবাসন ইস্যুতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। তিনি জানান, ২০১৫ সাল থেকে ব্যাপক হারে অভিবাসনের ফলে মারাত্মক সংকট দেখা দিয়েছে দেশটিতে।

তিনি আহ্বান জানান, ইউরোপীয় ইউনিয়নের কূটনীতিক নয়, অভিবাসীদের নিয়ন্ত্রণ করবে হাঙ্গেরী সরকার। তিনি বলেন, হাঙ্গেরীকে হেয় করার যে কোন ধরণের প্রচেষ্টা প্রতিহত করা হবে। কারণ আমাদের বর্ডার সুরক্ষিত করার অধিকার আমাদের রয়েছে। বৈঠকের পর তিনি বলেন, অং সান সুচির প্রতি হাঙ্গেরীর জনগণের গভীর শ্রদ্ধা রয়েছে। তিনি যা করেছেন তা তার দেশের স্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় রূপান্তরের জন্যই করেছেন।

অং সান সুচী ১৫ বছর গৃহবন্দি থাকার পর ২০১৫ সালে দেশটির বেসামরিক নেতা নির্বাচিত হবার পর গণতন্ত্রের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে প্রশংসিত হন। তবে ২০১৭ সালে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যায় তার ভূমিকায় বিশ্বব্যাপি নিন্দার ঝড় ওঠে এবং তার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়।

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যায় হাজার হাজার রোহিঙ্গা মুসলিমদের হত্যা, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগকে জাতিসংঘ গণহত্যা হিসেবে আখ্যায়িত করে। অং সান সুচী সরকার এই বর্বরোচিত গণহত্যা বন্ধ করতে এবং জীবন বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নেয়া শরণার্থীদের দেশে ফিরিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে।

মিয়ানমারের সাথে এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক সহযোগিতপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপনের জন্য সুচী মধ্য ইউরোপেও সফর করবেন। তিনি হাঙ্গেরী ছাড়াও চেক রিপাবলিকের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]