• প্রচ্ছদ » » মুক্তচিন্তাই সভ্যতার প্রাণশক্তিমাসকাওয়াথ আহসান


মুক্তচিন্তাই সভ্যতার প্রাণশক্তিমাসকাওয়াথ আহসান

আমাদের নতুন সময় : 10/06/2019

মুক্তচিন্তা শব্দবন্ধটি মানুষ আত্মপরিচয়ের অনন্য এক বৈশিষ্ট্য। নিজের চিন্তাটিকে একমাত্র সঠিক চিন্তা বলে ধরে না নিয়ে আরেকজন মানুষের বাস্তবতায় নিজেকে প্রতিস্থাপন করে তার ভিন্ন চিন্তাটিকেও সঠিক চিন্তা বলে উপলব্ধি করার ক্ষমতা অর্জনই মুক্তচিন্তার চর্চা। নানা ধর্ম বিশ্বাসের মানুষ নিজের ধর্মটিকে শ্রেষ্ঠ না ভেবে, অন্যদের ধর্ম বিশ্বাসকে সম্মান জানানোর উদারতাই মুক্তচিন্তা। ধর্ম বিশ্বাসগুলো প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সত্য-সুন্দর-মঙ্গলের নৈতিকতার উপর ভিত্তি করে। সে কারণে নানা ধর্মের মানুষের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে কোনো অসুবিধা হবারই কথা নয়। কিন্তু এক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়ায় মানুষের বদ্ধ চিন্তা। নিজের ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানগুলো সঠিক আর অন্য ধর্মের আচার-অনুষ্ঠানগুলো ভুল, এ রকম ‘আত্মশ্রেষ্ঠত্বে’ আটকে যাওয়া চিন্তার ভ্রান্তিই চলমান ‘ধর্মের নামে সহিংসতা’র মূল কারণ। কিন্তু প্রতিটি ধর্মের মূল কথা সত্য-সুন্দর আর মঙ্গল এই মিলের জায়গাটি চিন্তা করলেই এসব সংঘর্ষ যে মুক্তচিন্তা করার অক্ষমতাজনিত বিভ্রান্তি, তা স্পষ্ট হয়ে যায়। শুধু ধর্মই নয়, রাজনৈতিক দলের সমর্থকদের বদ্ধ চিন্তার কারণে নানা রাজনৈতিক দলের মাঝে সংঘর্ষ দৃশ্যমান। নিজের রাজনৈতিক আদর্শকেই পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম আদর্শ বলে ভাবার মানসিক বিভ্রান্তিই এ সংকটের মূল কারণ। ঠিক তেমনি নিজের জাতীয়তাবাদকে শ্রেষ্ঠ ভাবার উন্মাদনা পৃথিবীতে সংঘর্ষ তৈরি করেছে যুগে যুগে। ইতিহাসে তাই ‘শ্রেষ্ঠত্ব’ শব্দটি মানসিক বিকারের প্রতিশব্দ হিসাবেই নিজেকে প্রমাণ করেছে।
প্রত্যেকটি মানুষের মধ্যে স্বভাবজনিতভাবেই ইড-ইগো-সুপার ইগো থাকে। এই ইগো বা আত্মগর্ব সমাজবদ্ধ সামষ্টিক জীবনযাপনের চেয়ে নিজেকে বিশেষ কেউ হিসাবে তুলে ধরার মানসিক বিকার তৈরি করে। মুক্তচিন্তার ক্ষমতা অর্জন তাই নিজেকে শ্রেষ্ঠ না ভেবে অন্যতম একজন ভাবার সামর্থ্য অর্জন। যে কৃষক ফসল ফলান, যিনি প্রকৃতপক্ষে সমাজের অন্নদাতা, তাকে গৌণ ভাবা আর যিনি তার অর্পিত দায়িত্ব পালন না করে, অন্যের অন্ন কেড়ে নিয়ে দুর্নীতির ময়ূর প্রাসাদ গড়েছেন তাকে মুখ্য ভাবা সামাজিক অসাম্যের এই দৃষ্টিকটু দৃশ্যপট তৈরি করেছে। শ্রমঘন মানুষদের নিম্ন শ্রেণির বিবেচনা করে, অস্ত্রঘন ও ক্ষমতাঘন মানুষকে উচ্চ শ্রেণিতে অধিষ্ঠিত করার প্রক্রিয়ার মাঝ দিয়েই জগতব্যাপী মানবতা হননের প্রেক্ষাপট তৈরি করা হয়েছে। আমাদের চিন্তাকাঠামো এই আবদ্ধ বিশ্বাসে আটকে গেছে যে, মানুষের মধ্যে শ্রেণিবিভাগ রয়েছে। যিনি শ্রমঘন পেশায় রয়েছেন, তার কাজের ফলাফল দৃশ্যমান। কৃষকের শ্রমের ফসল আমাদের খাবার টেবিলে দেখা যায়। একজন পোশাক শ্রমিকের কাজের ফলাফল আমাদের পরিধেয়। কিন্তু বুদ্ধিঘন পেশার লোকের কাজের ফলাফল দৃশ্যমান নয়। এক একটি কাল্পনিক গল্পের বা ধারণার উপর ভিত্তি করে মন্ত্রী-আমলা-ব্যবসায়ী-ব্যাংকার-বুদ্ধিজীবীর পেশাগুলো দাঁড়িয়ে আছে। অথচ সমাজ শ্রমঘন মানুষকে প্রান্তিক আর বুদ্ধিঘন মানুষকে কেন্দ্রীয় চরিত্র করে রেখেছে। এই আবদ্ধ চিন্তা থেকে বেরিয়ে এসে সবাইকে সমান শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের চিন্তা করতে পারাই চিন্তাকে মুক্তি দেয়া। মুক্তচিন্তার একটা বেশ পোশাকি নাম রয়েছে, ‘প্রগতিশীলতা’। প্রগতিশীলতা হচ্ছে বদ্ধ চিন্তায় আবদ্ধ না থেকে চিন্তার মাঝে গতি সঞ্চার। গতকাল থেকে আজ কিংবা আজ থেকে আগামিকাল, এরই মাঝে জীবনচর্যায় অনেক পরিবর্তন ঘটছে। পরিবর্তিত পরিবেশে খাপ খাইয়ে নেয়াই ‘বুদ্ধি’। আমি যা জানি, যতোটুকু দেখেছি, সেটাই পৃথিবী নয়, আমার অভিজ্ঞতার বাইরে বিরাট পৃথিবী রয়েছে। এটা বুঝতে পারা জরুরি। যেমন গ্রামীণ জনপদে বা পাহাড়-অরণ্য-মরুভ‚মিতে যাদের বসবাস, তাদের নিজস্ব একটি জীবনধারা রয়েছে। আবার মেট্রোপলিটনে রয়েছে আরেকটি জীবনধারা। মেট্রোপলিটনের জীবনধারাকে আধুনিক বলা আর গ্রাম-পাহাড়-অরণ্য-মরুভ‚মির জীবনকে অনাধুনিক বলাটা স্টেরিওটাইপিং। ফলে আমরা যেটাকে প্রগতিশীলতা বলে উদ্যাপন করি, তাও ত্রæটিযুক্ত। কেবল রবীন্দ্রসংগীত শুনলে-বেতফেন শুনে ঘাড় দুলালে-পোশাকে শহুরে কেতা থাকলে-মাতৃভাষার মাঝে দুটি ইংরেজি গুঁজে দিলেই আমি আধুনিক হয়ে গেলাম, আর যে মানুষটি লুঙ্গি পরে পবিত্র গ্রন্থ থেকে তেলাওয়াত করে অথবা ধুতি পরে কীর্তন গায়, সে অনাধুনিক হয়ে গেছে এ রকম ক্লিশে চিন্তাও মুক্তচিন্তার অক্ষমতা। আবার মেট্রোপলিটনের জীবনধারাকে কোনো গ্রামীণ জীবনধারার মানুষ যদি উচ্ছৃঙ্খলতা বলে রায় দেয়, সেটাও ক্লিশে চিন্তা। যার যার জীবন সে যাপন করে, ফলে অন্যের জীবন নিয়ে চিন্তায় নিজের জীবনযাপন করতে ভুলে যাওয়া নিতান্তই বোকামি।
পৃথিবীতে নানা চিন্তার, নানা অভিমতের, নানা ধর্মের, নানা বর্ণের, নানা সংস্কৃতির, নানা পোশাকের, নানা জীবনাচরণের, নানা খাদ্যাভ্যাসের মানুষ রয়েছে বলেই পৃথিবীটা এতো সুন্দর। এ হচ্ছে নানা রকম পুষ্পবৈচিত্র্যের বাগানের মতো। সমস্যা হয়ে যায়, যখন গোলাপ ভাবে এ বাগানে কেবল গোলাপই থাকবে, যখন জবা ভাবে এ বাগানে শুধু জবাই থাকবে, টিউলিপ ভাবে এ বাগানে কেবল টিউলিপই থাকবে। জীববৈচিত্র্যের মাঝেই রয়েছে জগতের প্রাণপ্রবাহ। পাখি-প্রজাপতি-মৌমাছির সাহায্য নিয়ে পরাগায়ণ ঘটায় বলেই ফুল ফোটে। তেমনি নানা চিন্তার মানুষের উদ্ভাবন ও শ্রমের সম্মিলনেই সমৃদ্ধ হয় জীবন। চিন্তাবৈচিত্র্যকে উদ্যাপন করতে শেখার মাঝেই রয়েছে জীবনের সৌন্দর্য অনুধাবনের কৌশল। আর চিন্তার শ্রেষ্ঠত্ব কল্পনাই কট্টরপন্থা বা উগ্রপন্থা। এই উগ্রপন্থাই বিনাশ ডেকে আনে। একটি মৌলিক চিন্তাকে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট পরানোর অপচেষ্টাই মৌলবাদ। বিভিন্ন মৌলিক চিন্তার সংমিশ্রণে তৈরি হওয়া যৌগিক চিন্তাই উদারপন্থা। অন্যের চিন্তাকে সম্মান জানানোর চর্চা পৃথিবীকে যৌথ জীবনযাপনের যোগ্য করে তোলে। সেদিক থেকে ভাবলে মুক্তচিন্তাই সভ্যতার প্রাণশক্তি। সূত্র : সিলেটটুডে২৪.নিউজ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]