• প্রচ্ছদ » » মাঝেমধ্যে পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেটরা তালেবানি আচরণ করেন?


মাঝেমধ্যে পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেটরা তালেবানি আচরণ করেন?

আমাদের নতুন সময় : 11/06/2019

নুরুল মোমিন খান

খবর: বগুড়ার সারিয়াকান্দির প্রত্যন্ত অঞ্চলে দুটি যাত্রাগানের আয়োজন করেছিলো এলাকার লোক। কিন্তু বগুড়ার পুলিশ সুপারের নির্দেশে সেখানে হানা দিয়ে নর্তকীসহ ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ এবং প্যান্ডেল দুটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। পৃথিবীতে ৫০টি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ আছে। এর মধ্যে তিনটি দেশ রাষ্ট্রীয়ভাবে সবচাইতে ধর্মান্ধতার পরিচয় দিচ্ছে : সৌদি আরব, আফগানিস্তান এবং বাংলাদেশ। এই তিনটি দেশেই চলে সর্বাধিক বৈপরিত্যপূর্ণ আচরণ। মিশরসহ বেশ কয়েকটি দেশে চালু আছে বেলি ড্যান্স, পাকিস্তানে এখনো চালু আছে মুজরা। আর সংযুক্ত আরব আমিরাত, জর্দান, তিউনিশিয়াসহ অন্যান্য দেশের কথা বললাম না। কিন্তু বাংলাদেশে যাত্রাপালা থাকতে পারবে না! অথচ নীল ছবি(বøু ফিল্ম) দেখেননি অথবা সুযোগ পেলে দেখেন না এমন বাংলাদেশি খুঁজে পাওয়া যাবে না। কেবল যাত্রা গানে নর্তকীর কাজ করে যারা জীবন নির্বাহ করে, তাদের দেখলেই জাতির বিবেক উত্থিত হয়! যাদের খুশি করতে যাত্রাগান বন্ধ করা হয়েছে, সেই স¤প্রদায়ের গÐায় গÐায় লোক শিশু ধর্ষণ করে চলেছে। কালচারে পরিণত হয়েছে। প্রতিনিয়ত পত্রিকায় তাদের ছবি ছাপা হচ্ছে! কেবল যাত্রার মেয়েরাই অশ্লীল? এর পেছনে আছে বাংলাদেশের আবহমানকালের সংস্কৃতি ধ্বংসের এক গভীর নীল নকশা। রাজনীতিবিদরা তথা নীতি-নির্ধারকরা বোঝেন, কিন্তু তাতে তাদের কিছু আসে যায় না। তাদের ছেলেমেয়ে ও পরবর্তী প্রজন্মের ঠিকানা কানাডা-আমেরিকা-ব্রিটেন-অস্ট্রেলিয়া-সুইডেন-ডেনমার্ক(ল্যাংটা দেশ)। বগুড়ার অতি উৎসাহী এসপিকে আমার জিজ্ঞেস করতে ইচ্ছা করে, সাহেব, আপনার টেবিলের আশেপাশে, আপনার জুরিসডিকশনে কয়টা ঘুষখোর পুলিশকে জবাবদিহিতার আওতায় এনেছেন? আপনার চোখ পড়লো গিয়ে সারিয়াকান্দির প্রত্যন্ত অঞ্চলে? নাকি ঘুষ খেয়ে অপরাধে সহায়তা করা জায়েজ আছে? প্যান্ডেল পুড়িয়ে দেওয়ার মানে কী? কোথায় নিয়ে গেছেন দেশ একবার চোখ বুজে ভেবেছেন? ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]