ইহুদিদের গান

আমাদের নতুন সময় : 13/06/2019

কুলদা রায়

কাল গিয়েছিলাম ইহুদিদের গান শুনতে। সন্ধ্যায়। একটি পার্কের মধ্যে বড় একটি খোলা মাঠ। তার মধ্যে মঞ্চ টাঙিয়ে গানের আসর। সামনে চেয়ার নিয়ে বসে আছে বুড়ো-বুড়ি, যুবক-যবতী আর কিশোর-কিশোরী। এরা ইহুদি। আমরা বাংলাদেশের মানুষ এই ইহুদিদের ঘৃণা করতে ভালোবাসি। ঘৃণা করে অশেষ পুণ্য অর্জন করি। চারদিকে বন। ছায়া ঘন হয়ে আসছে। লোকজন কেউ হাঁটছে। কেউ দৌড়াচ্ছে। কেউ কেউ হাত-পা খেলিয়ে নিচ্ছে। আর মঞ্চে তিনজন বুড়ো বেহালা, গিটার আর কীবোর্ড বাজাচ্ছেন। দু’জন যুবকের মধ্যে একজন ধরেছে বাঁশি। আরেকজন ড্রামস। আরেকটি মেয়ের হাতে ম্যান্ডোলিন। গান গাইছে একজন পরীর মতো মেয়ে। গানের শুরুতে পরীটি কথা সেরে নিচ্ছে। আর গাইছে সামান্য নেচে নেচে। ঘাগরাটি দুলিয়ে। চুলগুলো হেলিয়ে। গানটি যখন শুরু হলো তখন সারা মাঠ দাঁড়িয়ে গেলো। কথা বোঝা যায় না। হিব্রæ ভাষার গান। পুরনোকালের লেখা। এটা গ্রাম্য প্রেমের গান। মেয়েটি যখন গাইতে গাইতে শোয়ালো শোয়ালো বলে সুর ধরছে তখন সারা মাঠের মানুষ দাঁড়িয়ে গেছে। শুনতে শুনতে সবাই গেয়ে উঠছে শোয়ালো শোয়ালো। আমার পাশে ঈশ্বর বসেছিলেন ঘাসের উপর। দেখি তার চোখ থেকে জল পড়ছে। আর গাইছেন শান্তি শান্তি। শান্তি মানে ভালোবাসা। বহুদিন পরে শোয়ালোর মধ্যে দিয়ে শান্তি পেলাম। আর ঈশ্বর আমাকে দিলেন একটি বই। নাম মাটিপুরাণ পালা। লেখক মনিরা কায়েস। পড়ছি। আর গাইছি শোয়ালো শোয়ালো। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]