• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » ব্যবসায়ীদের অন্ধকারে রেখেই বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে নতুন ভ্যাট আইন, দাবি ব্যবসায়ী নেতাদের


ব্যবসায়ীদের অন্ধকারে রেখেই বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে নতুন ভ্যাট আইন, দাবি ব্যবসায়ী নেতাদের

আমাদের নতুন সময় : 19/06/2019

স্বপ্না চক্রবর্তী : ব্যবসায়ীদের অন্ধকারে রেখেই ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ঘোষিত নতুন ভ্যাট আইন ১ জুলাই থেকে কার্যকর করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ব্যবসায়ী নেতারা। তাদের দাবি ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন হলে কোন পণ্যে কী পরিমাণ ভ্যাট কাটা হবে, সে বিষয়ে এখনও স্পষ্ট হতে পারেননি তারা।

মঙ্গলবার রোজায় পণ্য সহনীয় পর্যায়ে থাকায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ব্যবসায়ীদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। অনুষ্ঠানে ব্যবসায়ীরা এ বিষয়গুলো পরিষ্কার করার আহ্বান জানান। যাতে নতুন আইনে ব্যবসায়ীরা কোনো ধরনের হয়রানির শিকার না হয়, সে বিষয় গুরুত্ব দেয়ারও আহ্বান জানান তারা।

অনুষ্ঠানে বর্তমানে পণ্য মূল্য পরিস্থিতি সংক্রান্ত পর্যালোচনাও করা হয়। এ সময় বাণিজ্য সচিব মো. মফিজুল ইসলাম, সাবেক বিজিএমইএ সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, ডিসিসিআই সভাপতি ওসামা তাসিরসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যবসায়ী নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় বাংলাদেশ পাইকারি তেল ব্যবসায়ী সমিটির সাধারণ সম্পাদক হাজি মো. আবুল হাশেম বলেন, নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন হলে কী পরিমাণ ভ্যাট বাড়বে, সেটা আমরা জানি না। আমরা জানতে চাই, এটা যৌক্তিক হবে না অযৌক্তিক হবে। প্রত্যাশা একটাই, আমরা যৌক্তিক দামে পণ্য সরবরাহ করতে চাই। আমরা যারা পাইকারি ব্যবসা করি তারা অত্যন্ত সীমিত লাভে পণ্য বিক্রি করি। তাই ভ্যাটটা যেন যৌক্তিক হয়। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে চিনিতে অনেক ট্যাক্স দিতে হয়। এর ওপর আগামী বাজেটে আরও ট্যাক্স আরোপ করা হয়েছে। এটা প্রত্যাহার করারও আহ্বান জানান তিনি। সিটি গ্রুপের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান বলেন, এতোদিন আমরা টেনশন ফ্রি ব্যবসা করছিলাম। এখন ট্যাক্স বাড়ছে। কোনো সমস্যা নেই। সরকার চালাতে গেলে রাজস্ব বাড়াতে হবে। আমরা ট্যাক্স দিতে রাজি রয়েছি। ভ্যাট-ট্যাক্স দিতে আমাদের আপত্তি নেই। তবে তিন জায়গারটা এক জায়গায় করে ভ্যাট-ট্যাক্স নিলে ভালো হয়। প্রয়োজনে একটু বেশি ট্যাক্স নেয়া হোক। তবে চক্রবৃদ্ধি হারে ভ্যাট-ট্যাক্স যেন না বাড়ে সেদিকে নজর দিতে হবে।

তিনি বলেন, চিনিতে ৭ টাকা ট্যাক্স বাড়ানো হয়েছে। আজকে বিশ্ববাজারে চিনির দাম তলানিতে। সেটা হচ্ছে প্রতি টন ৩২২ ডলার। কিন্তু আমরা এক্ষেত্রে ভ্যাট-ট্যাক্স দিচ্ছি ৩৫০ ডলারের উপরে। যখন বিশ্ববাজারে চিনির মূল্য ৪৫০ ডলার হয়ে যাবে, তখন ভ্যাট-ট্যাক্স দিতে হবে ৪৫০ ডলার। তাই যে ৭ টাকা বাড়ানো হয়েছে এটা আর ৭ টাকা থাকবে না। এটা হয়ে যাবে ১৮ টাকা।

এসময় সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে ছোট ছোট দোকানদারকে জরিমানা করা হয়। তাদের কী দোষ? তারা তো আমদানিকারক কিংবা পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে পণ্য কিনে বিক্রি করে। সুতরাং এ পণ্যের মান গোড়াতেই যাচাই করার পরামর্শ দেন তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, জাতীয় বাজেটের ভ্যাটসহ বেশকিছু বিষয় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে যুক্ত। বিষয়টি নিয়ে আমি আলাপ করবো। আর কতোগুলো পণ্য আছে যেগুলো আমাদের হাতে নেই, সেগুলো বাই রোটেশন ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটের সঙ্গে যুক্ত। তারপরেও আপনারা চেষ্টা করবেন যাতে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকে। মানুষের যেন কষ্ট না হয়। সম্পাাদনা : রেজাউল আহসান

 

 

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]