• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর দৌঁড়ে স্টুয়ার্টই এখন জনসনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী


ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর দৌঁড়ে স্টুয়ার্টই এখন জনসনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী

আমাদের নতুন সময় : 20/06/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মেকে প্রতিস্থাপিত করার প্রতিযোগিতা এক গুরুত্বপূর্ণ ধাপে পৌঁছে গেছে। আগামী ২ দিনের মধ্যে ব্রিটিশ এমপিরা ২ জনকে চূড়ান্ত করবেন। যাদের একজন হবেন পরবর্তী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। শুরু থেকেই সবচেয়ে বেশি নাম শোনা যাচ্ছে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনের। তবে গত কয়েকদিনে এই তালিকায় উঠে এসেছে আরো একটি নাম। তিনি রোরি স্টুয়ার্ট। সিএনএন

রোরি স্টুয়ার্ট যুক্তরাজ্যের বর্তমান বৈদেশিক উন্নয়ন মন্ত্রী। তিনি ব্রেক্সিট বিরোধিতার জন্য খ্যাত। স্টুয়ার্ট একজন আত্মস্বীকৃতি মধ্যপন্থী, যিনি এখনও থেরেসার চুক্তিকে সমর্থন দিচ্ছেন। শুরুতে রোরি স্টুয়ার্টকে খুব বেশি হেভিওয়েট মনে না করা হলেও সময়ের সঙ্গে তিনি নিজের গুরুত্ব আর জনপ্রিয়তা বাড়িয়েছেন। খোদ পদত্যাগি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের সমর্থন আছে তার পেছনে। স্টুয়ার্ট বলছেন, ব্রেক্সিট নিয়ে ব্রাসেলস এ করা থেরেসার চুক্তিটিই চলমান অচলাবস্তা কাটানোর একমাত্র উপায়। হয় এই চুক্তি কার্যকর হবে, নাহলে ব্রেক্সিটই হবে না।

রোরি স্টুয়ার্ট একজন সাবেক কূটনীতিক। গুজব রয়েছে, তিনি ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর হয়ে গোপনে গুপ্তচরবৃত্তি করেছেন। আফগানিস্থানের মানুষকে বোঝার জন্য ২০০২ সালে যুদ্ধকবলিত দেশটিতে তিনি পায়ে হেটে ভ্রমণ করেন। এসময় নিজের অভিজ্ঞতা নিয়ে তিনি যে বই লেখেন তা বেস্ট সেলার হয়েছিলো। ইরাক যুদ্ধে মিত্রবাহিনীর কর্মকর্তা হিসেবেও তিনি কাজ করেন। সেসময় তার সংঘাত থামানোর চেষ্টা সকলের প্রশংসা কুড়িয়েছিলো। রোরি স্টুয়ার্ট সবসময়েই ¯্রােতের বিপরীতে চলেছেন। প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে তার অবস্থান সবসময়েই চোখে পড়ার মতো ছিলো। সপ্তাহ খানেক আগেও কেউ ভাবেনি তিনি হতে পারেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তবে এখন এই গুঞ্জন ছড়িয়েছে ভালোভাবেই। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]