চলচ্চিত্রে আসা প্রায় নতুনদের কাছে প্রিয় তারকা শাবনূর

আমাদের নতুন সময় : 26/06/2019

ইমরুল শাহেদ : নতুন এখন যারা চলচ্চিত্রে আসছেন তাদের প্রায় প্রত্যেকেই তাদের আইডল হিসেবে শাবনূরের নাম বলে থাকেন। প্রত্যেকের কথাতেই বোঝা যায়, শাবনূরের পর্দায় উপস্থিতির মধ্যে একটা আবেদন ছিলো যা তাদের অন্তরকে নাড়া দিয়েছে। নবাগত মেহেরিমা, প্রিয়াংকা জামানসহ আরো অনেকেই আছেন এ রকম শাবনূর ভক্ত। এসব নবাগতদের কেউ শাবনাজ, মৌসুমী, পপি বা পূর্ণিমার কথা বলেন না। বলেন না শাবানা বা ববিতার কথাও। তাদের কাছে শাবনূর কেন বৈশিষ্ট্যম-িত হলো? শাবনূর যখন চলচ্চিত্রে আসেন তখন তার পিতা কাজী নাসির বলেছিলেন, তার মেয়ে হবে দিব্যা ভারতী। মৌসুমী চলচ্চিত্রে আসার পর তার পিতা মনিরুজ্জামান মনির বলেছিলেন, আমার মেয়ে শাবানার স্থানটি যাতে দখল করতে পারে আমি তাকে সেদিকে নিয়ে যাচ্ছি। তাদের দু’জনের পিতাই আজ আর বেঁচে নেই। শাবনূর যেমন দিব্যা ভারতী হতে পারেননি তেমনি মৌসুমীও শাবানার স্থান দখল করতে পারেননি। এর কারণ বিভিন্ন। এখন যারা গ্ল্যামার জগতে আসেন তাদের কাছে পিছু টানের কথা বা তার দুর্বল দিকের কথা জানতে চাওয়া হলে কেউ কেউ সরাসরিই বলেন, বয় ফ্রেন্ড আছে। তবে বেশিরভাগই বয়ফ্রেন্ড এবং লাভারের মধ্যে পার্থক্য করতে পারেন না। কিন্তু মৌসুমী-শাবনূর বা তার আগের সময়ের চিত্রটা ভিন্ন। মৌসুমী বা শাবনূর বয়ফ্রেন্ড নিয়ে চলচ্চিত্রে আসেননি। তারা চলচ্চিত্রে এসে তাদের চারপাশে পেশাগত স্বার্থে প্রেমিক তৈরি করেছেন।

এসব প্রেমিকরা কোনো না কোনোভাবে চলচ্চিত্র শিল্পের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাঠামোতে অবস্থান করেছেন। তাতে তাদের ক্যারিয়ার এগিয়েছে এবং তারা নির্বিঘেœ অর্থ উপার্জন করেছেন। শাবনূর চলচ্চিত্রে আসার পর দীর্ঘদিন নিজের ব্যক্তি জীবন নিয়ে ভাবেননি। তার ভাবনায় ছিলো ক্যারিয়ারকে এগিয়ে নেয়া। মৌসুমী এসেই আর দেরি করেননি। প্রেমে জড়িয়ে পড়েছেন। এই প্রেম ক্যারিয়ারের স্বার্থে নয়, জীবন শুরু করার জন্য। কিন্তু শাবনূর ক্যারিয়ারের স্বার্থে সালমান শাহকেও হাত ছাড়া করেননি। যখন যে নায়ক জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করেছেন তখন তিনি সে নায়ককে কব্জা করেছেন নিজের স্বার্থে। প্রযোজক এবং পরিচালকদের বেলায়ও তিনি একই ভূমিকা রেখেছেন। অতীতে শাবানা-ববিতা বা রোজিনা-অঞ্জুদের মধ্যেও একই সমীকরণ লক্ষণীয়। এভাবে শাবনূরও নিজের বুদ্ধিমত্তা এবং মেধা দিয়ে দর্শক সমাজের হার্টথ্রব হয়ে ওঠেছেন। শাবনূরভক্ত চলচ্চিত্রে আসা নবাগতরাও কি শাবনূরের সেই পথ অনুসরণ করে চলবেন নাকি নিজেদের মতো করে এগিয়ে যাবেন সে কথা তাদের কেউ অবশ্য বলেননি।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]