• প্রচ্ছদ » আমাদের বাংলাদেশ » গুলশানের হলি আর্টিজানে নিহত ইশরাতের জন্য ডুকরে কেঁদে উঠেন জয়া  অবিন্তা কবিরের মা প্রতিরাত ১০টায় অপেক্ষায় থাকেন, মেয়ে তার ফিরবে


গুলশানের হলি আর্টিজানে নিহত ইশরাতের জন্য ডুকরে কেঁদে উঠেন জয়া  অবিন্তা কবিরের মা প্রতিরাত ১০টায় অপেক্ষায় থাকেন, মেয়ে তার ফিরবে

আমাদের নতুন সময় : 01/07/2019

দেবদুলাল মুন্না: রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার তিন বছর পূর্তি হলো গতকাল সোমবার। সেই হামলায় নিহত ইশরাত আখন্দকে নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানেিয়ছেন অভিনেত্রী জয়া আহসান ও অবিন্তা কবিরের মা রুবা আহমেদ। গতকাল জয়া আহসান তার ওয়েব পেইজে লেখেছেন, ‘নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় শুক্রবার সন্ধ্যা ছয়টা-সাড়ে ছয়টা, বাংলাদেশে তখন শনিবার ভোর। ম্যাডিসন স্কয়ার গার্ডেনে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ‘রাজকাহিনি’র জন্য সেরা সহ-অভিনেত্রীর পুরস্কার নিতে তখন মঞ্চে উঠছি আমি। ঠিক তখন খবর পাই হলি আর্টিজানে হামলার। মঞ্চে গমগম করছে আমার দেশের জাতীয়-সঙ্গীত। আমি সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে ঠোঁট মেলাচ্ছি। তখনও অনেকেই সে-ভাবে জানেন না, ঢাকায় কী চলছে। আমাকে দেখেও বাইরে থেকে হয়তো কিছু বোঝার উপায় নেই। কিন্তু আমার ভেতরটা ফালা-ফালা হয়ে যাচ্ছে। আমি যে তত ক্ষণে খবর পেয়েছি, গুলশনের বেকারিতে ঢুকে জঙ্গিরা সবাইকে জিম্মি করে রেখেছে! গুলশানের এই ক্যাফেতে আমি কত বার গিয়েছি, কত সুন্দর সময় কাটিয়েছি। সেখানে খুব কাছেই আমার ভাই থাকে। খানিক ক্ষণ বাদে ইশরাত আপার খবরটা পেলাম। ইশরাত আখন্দকে ওরা মেরে ফেলেছে। আমরা একই জায়গায় আঁকা শিখেছি ছোটবেলায়। এক সঙ্গে হাতে তুলি ধরতে, রং দিতে শেখা। কী আশ্চর্য প্রাণবন্ত মানুষ। আর ওর সঙ্গে আর দেখা হবে না? ভাবতে পারছি না। আমি মঞ্চে দাড়িয়েই ইশরাত আপার মৃত্যু সংবাদ শুনে ডুকরে কাঁদতে থাকি। অনেকইে হয়তো ভাবছিলেন জাতীয় সঙ্গীত বাজছে বলে কাঁদছিলাম।’

অবিন্তা কবিরের মা রুবা আহমেদ আজও মেয়ের শোকে স্তব্ধ। তিনি বলেন ‘আমাকে সে বলেছিল রাত ১০টার মধ্যে ফিরে আসবে। আমি বারান্দায় দাঁড়িয়ে ছিলাম। কিন্তু সে ফিরে আসেনি। গত তিন বছর ধরেই প্রতিদিনই রাত ১০টায় যেন আমি অপেক্ষা করি ওর জন্য। সে সুদূর যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে এসেছিল আমার সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে। আমরা তার স্মৃতি রক্ষার্থে ‘অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন’ করেছি। এর আওতায় সমাজের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য গড়ে তোলা হয়েছে বিদ্যালয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে চালু হয়েছে অবিন্তা সাইবার সেন্টার ও আর্কাইভ। রাজধানীর প্রগতি সরণিতে অবিন্তার নানি নীলু মোর্শেদের এথেনা গ্যালারি অব ফাইন আর্টসের নাম বদলে রাখা হয়েছে অবিন্তা গ্যালারি অব ফাইন আর্টস। স্মৃতি ধরে রাখতে এতকিছু করা হলেও আমার মন এখনও রাত দশটা বাজলেই থেমে যায়। অপেক্ষা করি সে ফিরবে।’ সম্পাদনা : ইকবাল খান

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]