ব্যাবিলনকে বিশ্বঐতিহ্যের তালিকায় যুক্ত করলো ইউনেস্কো

আমাদের নতুন সময় : 07/07/2019

সুস্মিতা সিকদার : প্রাচীনকালে মেসোপটেমিয়া অঞ্চলে যে সব সভ্যতা গড়ে উঠেছিলো তার মধ্যে ব্যাবিলনীয় সভ্যতা পৃথিবীর প্রাচীনতম ও অন্যতম সভ্যতা। এটি ছিলো দক্ষিণ মেসোপটেমিয়ার একটি রাজ্য, যা বর্তমানে আধুনিক ইরাকের অন্তর্গত। ১৭৭০ থেকে ৩২০ খ্রিষ্ট পূর্বাব্দে ব্যাবিলন ছিলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় শহর। সম্প্রতি ইউনেস্কো ইরাকে অবস্থিত এই সভ্যতাকে বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি দিলো। ইতিমধ্যে ইউনেস্কো ১৬৭টি দেশের ১০৯২টি স্থানকে বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে চিহ্নিত করেছে। সিএনএন,ইন্টারনেট
এই বিশ্ব ঐতিহ্য থেকে দেশটির পর্যটন খাত প্রচুর অর্থ উপার্জন করলেও এর নিরাপত্তায় নেই কোন যথাযথ ব্যবস্থা। তাই ইউনেস্কো এর নিরপত্তা বিধানের দিকটিতে নজর দেবে। এছাড়া উইনেস্কো অন্যান্য দেশের বিশ্ব ঐতিহ্য রক্ষায়ও কাজ করবে বলে জানা যায়। ২০১৯ সালে ব্যাবিলনীয় সভ্যতা ছাড়াও চিনের ইয়াংলু নদী ও আইসল্যাÐের ভাটনাজোকুল ন্যাশনাল পার্ককে বিশ্ব ঐতিহ্যের অন্তর্ভুক্ত করা হলো।
উল্লেখ্য, ব্যাবিলন সা¤্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন সারগন। রাজা হাম্মুরাব্বি ছিলেন এই সভ্যতার শ্রেষ্ঠ শাসক। তিনি বিভিন্ন ভাগে বিভক্ত নগর রাষ্ট্রকে একত্রিত করেছিলেন। তার সময়কাল ব্যাবিলনের ‘স্বর্ণযুগ’ হিসেবে পরিচিত। ব্যাবিলনে ‘কিউনিফর্ম’ অর্থ্যাৎ কীলক আকারের লিখন পদ্ধতি ছিলো। এই পদ্ধতি ছিলো প্রাচীন মিশরীয় লিখন পদ্ধতি থেকে অনেক উন্নত । ব্যাবিলনীয়রা অসংখ্য দেব দেবীর পূজা করতো। সূর্য দেবতা মারদুক ছিলো তাদের শ্রেষ্ঠ দেবতা। ব্যাবিলনের ‘শূণ্য উদ্যান’ পৃথিবীর সপ্তাশ্চর্যের অন্যতম। তারা শিল্প ও বাণিজ্যেও অনেক উন্নত ছিলো। কাঁচ শিল্পের উন্নতি ও প্রসারে তাদের যথেষ্ট অবদান রয়েছে। চিত্রাঙ্কন, জ্যোতিষ শাস্ত্র, অঙ্ক শাস্ত্র ও আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে তারা ছিলো পারদর্শী। গ্রহ-নক্ষত্র সম্পর্কে তাদের ছিলো গভীর জ্ঞান । সূর্য ও জলঘড়ির সাহায্যে তারা সময় নিরূপণ করতো। চন্দ্রগ্রহণ ও সূর্যগ্রহণ সম্পর্কেও তাদের ধারণা ছিলো যথাযথ। দশমিক সংখ্যা পদ্ধতির গণনা ব্যাবিলন থেকেই প্রসার লাভ করে। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]