• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার ও বান্দরবানের পথে বাস  চলাচল বন্ধ, বিমানবন্দর সড়কে যানজটে দুর্ভোগ
পরবর্তী


চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার ও বান্দরবানের পথে বাস  চলাচল বন্ধ, বিমানবন্দর সড়কে যানজটে দুর্ভোগ

আমাদের নতুন সময় : 10/07/2019

অনুজ দেব : টানা ভারি বৃষ্টিতে সাতকানিয়ায় সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় চট্টগ্রামের সঙ্গে কক্সবাজার ও বান্দরবানের পথে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে সাতকানিয়ার কয়েকটি ইউনিয়নের মানুষ। চট্টগ্রামের কয়েকটি উপজেলা থেকে ভূমি ধসের খবরাখবর আসলেও কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। এদিকে জলাবদ্ধতার কারণে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয় নগরের বিভিন্ন সড়কে। সোমবার সন্ধ্যার মধ্যে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় পানি নেমে গেলেও নিচু এলাকাগুলো থেকে পানি পুরোপুরি সরে যায়নি। বিমানবন্দর সড়কের কয়েকটি অংশে জমে থাকা পানি না সরায় দুদিনেরও বেশি সময় ধরে কার্যত অচল হয়ে পড়ে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর অভিমুখী দুটি সড়ক। ফলে কাস্টম মোড় থেকে বিমানবন্দর সড়কে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকা পড়ে যানবাহনগুলো। যানজটের কারণে ভোগান্তিতে পড়েন বিদেশগামী যাত্রীরা। ভারি বৃষ্টিতে পানি জমে এবং উন্নয়নকাজের জন্য খোঁড়া গর্তের কারণে এক কিলোমিটার পার হতেই সময় লেগে যায় কমপক্ষে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা। গত দু’দিন ধরে সময়মতো বিমানবন্দরে পৌঁছাতে না পারা অনেক যাত্রীকে রেখেই ফ্লাইট চলে গেছে গন্তব্যে।

 

নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের উপ-কমিশনার (বন্দর) তারেক আহম্মেদ জানান, কমপক্ষে ৭ থেকে ৮ কিলোমিটার এলাকায় যানজট সৃষ্টি হয়েছে। নগরীর সিডিএ এভিনিউতে জিইসি থেকে বহদ্দারহাট পর্যন্ত সড়কেও সৃষ্টি হয় যানজট। ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে বাকলিয়া, চকবাজার, চান্দগাঁওয়ের কোনো কোনো এলাকা থেকে পানি সরেনি। মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে টানা ভারি বৃষ্টিতে গত সোমবার রাত ৯টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত চট্টগ্রামে ১৪৩ দশমিক ৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অফিস। মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত নগরীতে ৩৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আমবাগান আবহাওয়া অফিস। পতেঙ্গার আবহাওয়া পূর্বাভাস কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম জানান, মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে আরও কয়েকদিন ভারি বর্ষণ হতে পারে। ভারি বর্ষণের কারণে পাহাড় ধসের সম্ভাবনা রয়েছে। ভূমিধসের শঙ্কায় পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসরত ৭০০ পরিবারকে আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

 

এদিকে টানা ভারি বৃষ্টিতে সাতকানিয়ায় সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় চট্টগ্রামের সঙ্গে কক্সবাজার ও বান্দরবানের পথে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোবারক হোসেন জানান, টানা তিনদিনের বৃষ্টির কারণে বাজালিয়া ইউনিয়নের চট্টগ্রাম-বান্দরবান সড়কে পানি উঠে যাওয়ায় যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে দূরপাল্লার কোনো বাস ছাড়েনি। রাঙ্গুনিয়া উপজেলা কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান জানান, তিনদিনের টানা বৃষ্টিতে হোসনাবাদ ও কোদালা ইউনিয়নে মাটি ধসের ঘটনা ঘটলেও কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। বান্দরবানে বৃষ্টিতে পাহাড় ধস ও যেকোনো দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবেলায় জেলায় ১২৬টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বান্দরবানের জেলা প্রশাসক মো. দাউদুল ইসলাম। সম্পাদনা : ওমর ফারুক




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]