• প্রচ্ছদ » লিড ১ » প্রকল্প বাস্তবায়নে একগুচ্ছ নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী, একনেকে ১৩টি প্রকল্প অনুমোদিত, ব্যয় হবে ৭ হাজার ৭৪৪ কোটি টাকা


প্রকল্প বাস্তবায়নে একগুচ্ছ নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী, একনেকে ১৩টি প্রকল্প অনুমোদিত, ব্যয় হবে ৭ হাজার ৭৪৪ কোটি টাকা

আমাদের নতুন সময় : 10/07/2019

বিশ্বজিৎ দত্ত : জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) বৈঠকে একগুচ্ছ  নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসব নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে দেশের সব মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচলের জন্য আলাদা লেন ও মহাসড়কে বাস বে নির্মাণ করা, বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণায় শিক্ষকদের  মনোযোগ দেয়া, তিতিুমীর কলেজের মাঠে কোন স্থাপনা নির্মাণ না করা। যেসব এরাকায় বিশ্ববিদ্যালয় আছে সেসব এলাকার কলেজগুলোকে সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে নিয়ে আসাসহ একগুচ্ছ   নির্দেশ। ।

এ ছাড়াও দেশের জাতীয়, জেলা ও আঞ্চলিক পর্যায়ের সব সড়ক পর্যায়ক্রমে প্রশস্ত ও পুরু করা এবং পুরনো সরু সেতু ভেঙে নতুন করে করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে গবেষণা ও সৃজনশীলতা বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, ‘শুধু দালান দেখি, কিন্তু গবেষণাতো দেখি না। তাই বিল্ডিং এর পাশাপাশি গবেষণা কার্যক্রম বাড়াতে হবে।’

গতকাল জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) বৈঠকে এসব নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। পরে সাংবাদিকদের কাছে ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এসব তথ্য জানান।

মহাসড়কে আলাদা লেন করা হবে কি না জানতে চাইলে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘আলাদা স্বল্পগতির লেন করা হবে। নির্দিষ্ট দূরত্বে বিশ্রামাগারও থাকতে হবে। তাছাড়া সরু সেতুগুলো ভেঙে বড় করা হবে। এরইমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে অনেক জায়গায়’।

এম এ মান্নান জানান, বেসরকারি উদ্যোক্তারা যাতে দোকান বা টয়লেট বানাতে পারেন সেজন্য জমি নির্ধারণের নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর বরাত দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আরো জানান, মহাসড়কে আমরা জায়গা দেব, কিন্তু দোকান তুলে দেব না। ব্যক্তি পর্যায়ে ব্যবসা করতে পারবেন যে কেউ। তাছাড়া সড়কের যেকোনো প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এবং নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়কে যৌথভাবে কাজ করার নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি।

একনেক বৈঠকে দেশের ২৬৭টি জরাজীর্ণ ডাকঘর সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এজন্য বাংলাদেশ ডাক বিভাগের অধীনস্ত জরাজীর্ণ ডাকঘরগুলোর সংস্কার পুনর্বাসন প্রকল্প হাতে নিচ্ছে ডাক বিভাগ। এ বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, ডাক বিভাগের বিষয়ে একনেকে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ডাক বিভাগকে আধুনিক করতে হবে। তাদের নিজস্ব চিন্তা দিয়ে ডিজিটাল ডাকঘর প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বহুমুখী কর্মকা- পরিচালনা করতে হবে। যাতে তারা নিজেরাই আয় করতে পারে। তা না হলে ডাক বিভাগ আগামীতে আর থাকবে না। সারাজীবন তাদের এভাবে চালানো যাবে না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগারগাঁও এ নতুন জিপিও ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। আগেরটি যেন সবুজ পার্ক হয়। সেখানে যেন মানুষ অবসরে ঘুরতে যেতে পারেন, সে ব্যবস্থা করতে হবে।

মঙ্গলবার একনেকে ১৩টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এগুলো বাস্তবায়নে মোট খরচ ধরা হয়েছে ৭ হাজার ৭৪৪ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ৬ হাজার ৪১৪ কোটি ৯৭ লাখ টাকা, বৈদেশিক সহায়তা থেকে ১ হাজার ১৪০ কোটি ৪৪ লাখ টাকা এবং বাস্তবায়নকারী সংস্থা থেকে ১৮৯ কোটি টাকা খরচ করা হবে।

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]