• প্রচ্ছদ » সাবলিড » নূর খান লিটন মনে করেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতি ও নৈতিক অবক্ষয়ে ধর্ষণ ও শিশুর প্রতি হিং¯্রতা বাড়ছে


নূর খান লিটন মনে করেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতি ও নৈতিক অবক্ষয়ে ধর্ষণ ও শিশুর প্রতি হিং¯্রতা বাড়ছে

আমাদের নতুন সময় : 11/07/2019

আমিরুল ইসলাম : আমাদের সামাজিক অবক্ষয়ের মাত্রা দিন দিন চরম আকার ধারণ করছে। সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সরকার বরাবরের মতোই ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে। বিভিন্ন অন্যায় ও খুন-খারাবি বৃদ্ধির সঙ্গে শিশুর প্রতি হিং¯্রতাও বেড়েই চলেছে। বাড়ছে ধর্ষণজনিত হত্যা। শিশুর প্রতি হিং¯্রতা বৃদ্ধির কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে জানতে চাইলে মানবাধিকার কর্মী নূর খান লিটন বলেছেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতি ও সামাজিক নৈতিক অবক্ষয়ের কারণে ধর্ষণ ও শিশুর প্রতি হিং¯্রতা বাড়ছে ।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে শিশু এবং নারী উভয়েই ঝুঁকির মধ্যে আছে। এ বিষয়ে একটি প্রচলিত ধারণা আছে, ‘নারীরা অবলা’ তাদের কোনো শক্তি নেই। শিশুদের প্রতিরোধ করার ক্ষমতা কম। শিশুদের উপর হিং¯্রতা চালানো হলে এ বিষয়টাকে গোপন রাখার চেষ্টা করা হয় আমাদের সমাজের বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই। শিশুদের খুব সহজে প্রতারণা করে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় নেয়া যায়। এসব কারণে শিশুর প্রতি হিং¯্রতা বাড়ছে। আরেকটি বিষয় হচ্ছে আমাদের সমাজে মানুষের নৈতিকতার অবক্ষয় ঘটেছে। তাই এ  ধরনের অপরাধ ক্রমান্বয়ে বেড়ে চলেছে। গত বছরের চাইতে এ বছর পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত খবরেই দ্বিগুণ হয়েছে। বাস্তবে সংখ্যাটা আরও বেশি। বিচারহীনতার সংস্কৃতি অর্থাৎ এ ধরনের ঘটনা ঘটার পর বিচার খুব কম হচ্ছে। সাম্প্রতিককালে দেখা যাচ্ছে এ ধরনের অপরাধে বিচার প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত হওয়ার কারণে অপরাধীরা সাহস পাচ্ছে। আমরা দেখতে পাচ্ছি যারা ক্ষমতার সঙ্গে যুক্ত তাদের বিচার কাজ বিলম্বিত হচ্ছে বা তারা বিভিন্নভাবে রেহাই পেয়ে যাচ্ছে। সেটা রাজনৈতিক ক্ষমতা হোক আর অর্থের ক্ষমতা হোক। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হচ্ছে না বলে অপরাধীরা এ ধরনের কর্মকা- করেই যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, সমাজে সাংস্কৃতিক মান দুর্বল হয়ে যাচ্ছে। সুশাসন নিশ্চিত করার মাধ্যমে এটা দমন করা সম্ভব। শুধু ক্রসফায়ার বা বড় ধরনের শাস্তি প্রয়োগের মধ্য দিয়ে এ ধরনের ঘটনা নিরসন বা কমিয়ে আনা সম্ভব হবে না। ধর্ষণের ব্যাপারে সামাজিক মাধ্যমে যে ধরনের বক্তব্য আসছে এটা একটা সুষ্ঠু সমাজের জন্য কলঙ্কজনক। যখন সমাজের সর্বাঙ্গে পচন ধরে যায় তখন সাধারণত দেখা যায় সংবিধানের বাইরে যেয়ে বর্বর কোনো উপায়ে  সমাধানের চেষ্টা করা হয়। ধর্ষণ ও শিশুর প্রতি হিং¯্রতা রোধে মানুষকে সচেতন করা এবং সামাজিক  নৈতিকতার মান বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা খুব জরুরি বলে মনে করেন এই মানবাধিকার কর্মী।

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]