• প্রচ্ছদ » » আমরা রেগে গেলে চিৎকার করি কেন?


আমরা রেগে গেলে চিৎকার করি কেন?

আমাদের নতুন সময় : 13/07/2019

একেএম শামসুদ্দিন

একদিন এক শিক্ষক তার ছাত্রদের প্রশ্ন করলেন… ‘তোমরা কি বলতে পারো, আমরা যখন অনেক বেশি রেগে যাই, তখন চিৎকার করি কেন?’ সবাই বেশ কিছুক্ষণ চিন্তা করার পর একজন ছাত্র উত্তর দিলো…’ কারণ রেগে গেলে আমরা নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ হারাই তাই একটা পর্যায়ে চিৎকার করে ফেলি।’ ‘কিন্তু আমরা যার উপর রাগ করি সেই মানুষটি তো আমাদের সামনেই থাকে তবুও কেন আমাদের চেঁচিয়ে তার সঙ্গে কথা বলতে হবে? নরম স্বরে, আস্তে কথা বললেও তো সে শুনতে পাবে। তাই না?’ ছাত্ররা অনেক চিন্তা করেও শিক্ষকের এই প্রশ্নের কোনো সঠিক উত্তর খুঁজে পেলো না। তখন শিক্ষক ব্যাখ্যা করলেন… ‘দুটো মানুষ যখন একে অপরের উপর রেগে যায় তখন তারা একে অন্যের অন্তর থেকে দূরে সরে যায়। এই রাগ তাদের অন্তরের মাঝেও দূরত্ব সৃষ্টি করে। সেই দূরত্ব একটু একটু করে যতো বাড়তে থাকে ততোই তাদের রাগ বা ক্রোধ বেড়ে যায় এবং তখন তাদের আরও চিৎকার করতে হয়, আরও জোরে তর্ক করতে হয়।’ ‘আবার যদি আমরা ভেবে দেখি, দুজন মানুষ যখন একে অন্যের প্রেমে পড়ে বা ভালোবাসে তখন কী হয়? তখন ভালোবাসার বন্ধনে থাকা মানুষ দুজন একে অন্যের সঙ্গে ধীরে ধীরে নরম স্বরে, আবেগ নিয়ে কথা বলে। কারণ যারা ভালোবাসে তারা একে অন্যের অন্তরের খুব কাছে থাকে। আর যারা অন্তরের কাছে থাকে তাদের কথা শুনতে হলে চিৎকার করার কোনো প্রয়োজন পড়ে না। এমনকি শুধু ফিস্ ফিস্ করেও তারা তখন কথা বলতে পারে।’ ‘যারা আরও বেশি গভীরভাবে একে অন্যকে অনুভব করতে পারে, ভালোবাসতে পারে তখন কী হয় তা কি আমরা জানি?’ ‘অদ্ভুত সুন্দর ব্যাপার হলো তাদের তখন ফিস ফিস করেও কথা বলতে হয় না। তারা দুজন যখন একে অন্যের চোখের দিকে তাকায় তখনই অন্তরের অনুভ‚তি, কথা, শব্দমালা সব অনুভব করে ফেলতে পারে। কারণ তখন তাদের অন্তর তাদের এক করে ফেলে। তাদের কথা হয় তখন অন্তরে অন্তরে।’ (রাজিলের বিখ্যাত এবং বেস্টসেলার লেখক *পাওলো কোয়েলহো*-এর ‘৩০ ঝঊঈ জঊঅউওঘএ: যিু ফড় বি ংযড়ঁঃ রহ ধহমবৎ?’ থেকে অনুবাদ)। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]