• প্রচ্ছদ » সর্বশেষ » রিকশার ভূমিকাকে ইতিবাচকভাবে নিয়েই বহুমাধ্যম ভিত্তিক সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রয়োজন


রিকশার ভূমিকাকে ইতিবাচকভাবে নিয়েই বহুমাধ্যম ভিত্তিক সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রয়োজন

আমাদের নতুন সময় : 13/07/2019

ইউসুফ বাচ্চু : রিকশার ভূমিকাকে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখবার মাধ্যমে ঢাকা শহরের জন্য বহুমাধ্যম ভিত্তিক সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন। নগর পরিবহণ ব্যবস্থায় রিকশার অবদানের যথাযথ স্বীকৃতি দিয়ে রিকশার ভূমিকাকে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখবার মাধ্যমে ঢাকা শহরের জন্য বহুমাধ্যম ভিত্তিক সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন। ওয়ার্ড অথবা এলাকাভিত্তিক সকল প্রকার যানবাহনের জন্য স্থানীয় যোগাযোগ পরিকল্পনা (খড়পধষ ঞৎধহংঢ়ড়ৎঃ চষধহ), স্থানীয় যানবাহন চলাচল পরিকল্পনা (খড়পধষ গড়নরষরঃু চষধহ) তৈরী করা এবং পরিকল্পনা প্রণয়নে জনপ্রতিনিধি, এলাকাবাসী ও পেশাজীবিদের সম্পৃক্ত করা আবশ্যক। শুক্রবার নগর পরিকল্পনাবিদদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স (বি.আই.পি.) এর নিজস্ব কার্যালয়ে ‘ঢাকা শহরে রিকশা ও অযান্ত্রিক বাহনের চলাচল সম্পর্কে নগর পরিকল্পনার দৃষ্টিকোণ থেকে করণীয়’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনাবিদগণ এ মতামত দেন।

বি.আই.পি.-র পক্ষ থেকে ড. আদিল বলেন, সীমিত বসবাসযোগ্য ভূমি, সীমিত অবকাঠামো এবং অপ্রতুল নাগরিক-সুবিধা রয়েছে সেখানে অতিরিক্ত বাড়তি জনসংখ্যা ঢাকার পরিবহনব্যবস্থার ওপর বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করছে। নগর পরিবহনের ক্ষেত্রে সামগ্রিকভাবে পরিকল্পনার অভাব ও স্বল্প মেয়াদি বিছিন্ন চিন্তার বাস্তবায়নের ফলে পরিবহন ব্যয়, সময় ও মানুষের ভোগান্তি বাড়ছে। এছাড়াও তিনি বলেন, ঢাকা শহরের সাধারণ জনগণের দৈনন্দিন জীবনে যাতায়াতের অন্যতম বাহন হচ্ছে রিকশা। কৌশলগত পরিবহন পরিকল্পনা (এসটিপি) অনুসারে, ঢাকার দৈনিক ট্রিপের প্রায় ৪০ শতাংশ রিকশায় সম্পন্ন হয়। সম্প্রতি ৭ জুলাই থেকে সড়কে শৃঙ্খলা আনতে ঢাকা শহরের গুরুত্বর্পূণ সড়কগুলোতে যানজটের অন্যতম প্রধান কারণ হিসেবে ধীর গতির রিকশাকে চিহ্নিতকরণপূর্বক কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় রিক্সা চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। যদিও ঢাকা শহরের যানজটের জন্য অপরিকল্পিত সড়ক ব্যবস্থা, সড়কে ব্যক্তিগত গাড়ির আধিক্য, অবৈধ পার্কিং, দুর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থাপনাসহ বহুবিধ কারন রয়েছে। ফলশ্রুতিতে নগরীর টেকসই উন্নয়নের জন্য বহুমাধ্যম ভিত্তিক সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রণয়ন করা দরকার বলে বি.আই.পি. মনে করে।

পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক ড. আকতার মাহমুদ বলেন, স্ট্র্যাটেজিক ট্রান্সপোর্ট প্ল্যানে প্রাইমারী রোডে রিকশা নিষিদ্ধ করার কথা বলা হলেও সাধারণ যাত্রীদের জন্য পর্যাপ্ত বিকল্প ব্যবস্থা না করে সড়কে রিকশা চলাচল নিষদ্ধ করার বদলে ধাপে ধাপে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত।

পরিকল্পনাবিদ ড. মোসলেহ উদ্দীন হাসান টেকসই সমাজ গঠনের জন্য সিদ্ধান্ত প্রণয়নকারীদের সামগ্রিক উন্নয়ন নিয়ে চিন্তা করতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

ওয়ার্ক ফর বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর কর্মসূচী ব্যবস্থাপক মো. মারুফ হোসেন  অল্প দুরত্বের জন্য তিনি অযান্ত্রিক বাহনকে প্রাধান্য দেয়ার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন। এছাড়াও অযান্ত্রিক বাহনের অবকাঠামোগত সমন্বয়ের মাধ্যমে রিকশা ভ্রমণে নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা বিধান করার বিষয়ে মনযোগী হতে হবে এবং রিকশা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নে সরকারসহ সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থাকে আন্তরিক হওয়ার আহ্বান জানান।

ইউএন-হ্যাবিটেট এর নগর পরিকল্পনা বিশেষজ্ঞ পরিকল্পনাবিদ মো. সোহেল রানা বলেন, সমস্ত বিষয়গুলোকে সমন্বিত পরিকল্পনার আওতাভুক্ত করতে হবে বলে তিনি মন্তব্য  করেন।

বি.আই.পি.-র সভাপতি পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক ড. এ কে এম আবুল কালাম বলেন, সংশোধিত স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যান এর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রিকশা এবং অন্যান্য অযান্ত্রিক বাহনের জন্য আলাদা লেন বাস্তবায়ন করতে হবে। এক্ষেত্রে বিকল্প যানবাহনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করে রিকশার উপর নিসেধাজ্ঞা করার বিষয়ে তিনি মত প্রকাশ করেন। সম্পাদনা : আবদুল অদুদ

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]