• প্রচ্ছদ » » সাধারণ নাগরিক সমাজকে ঘিরে একের পর অগ্নিবলয় কীভাবে লেলিহান হয়ে উঠছে, তা উপলব্ধি করা খুব জরুরি


সাধারণ নাগরিক সমাজকে ঘিরে একের পর অগ্নিবলয় কীভাবে লেলিহান হয়ে উঠছে, তা উপলব্ধি করা খুব জরুরি

আমাদের নতুন সময় : 14/07/2019

সুব্রত বিশ্বাস

রাজনৈতিক নেতৃত্ব প্রশাসনকে যেভাবে ও যতোটা কাজে লাগাতে চাইবে প্রশাসন ঠিক সেইভাবে এবং ততোটাই কাজে লাগবে। অতএব নৈরাজ্যের দিকে ধাবিত হওয়ার দায়টা কাদের উপর বর্তায়, তা বুঝে নিতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। প্রশাসন প্রশাসনের জায়গাতেই থাকে। তার কর্তৃত্ব লঘু হবে, নাকি মাত্রাতিরিক্ত গুরু হয়ে উঠবে, সেটা নির্ভর করে রাজনৈতিক নেতৃত্বের কুশলতার উপরে। সত্তরের দশকের ইতিহাসেই পড়েছে বর্তমান প্রজন্ম সেই সময়টার কথা নৈরাজ্যে আর সাম্প্রতিক নৈরাজ্যের পরিস্থিতি এই রকম পরিস্থিতি নয়, সমাজবিরোধীর এনকাউন্টারের খবর আসছে। পুলিশ-প্রশাসনকে গ্রাহ্যই করছে না সমাজবিরোধীরা, প্রকাশ্যে বা সর্বসমক্ষে বা জমজমাট রাস্তার মোড়ে যখন তখন খুন হয়ে যাচ্ছে। কোথাও আবার আচমকাই পথ চলতে চলতে সংঘর্ষ বেধে যাচ্ছে পুলিশ আর সমাজবিরোধীর মধ্যে, এনকাউন্টারে মৃত্যু হচ্ছে দুষ্কৃতকারীর। এই দৃশ্যগুলো কোনো স্বাভাবিক দৃশ্য নয়। লাগামছাড়া রাজনৈতিক হিংসা এবং তার জেরে প্রান্তে প্রান্তে খুন জখম যেভাবে চলছে, তাতে হিংসা বা রক্তপাত বোধহয় আমাদের অনেকের চোখেই সয়ে গেছে। তাই দুষ্কৃতকারীদের বাড়বাড়ন্ত বা নানা সমাজবিরোধী তত্তে¡র বিরুদ্ধে প্রশাসনের ব্যর্থতা আলাদা করে চোখে ধরা দেয় না। হয়তো সত্তরের দশকের কথা বলবেন। কিন্তু অনেকগুলো দশক আগেই সে সময়টাকে পেছনে ফেলে রেখে এসেছি আমরা। কিন্তু সাধারণ নাগরিক সমাজকে ঘিরে একের পর অগ্নিবলয় কীভাবে লেলিহান হয়ে উঠছে, তা উপলব্ধি করা খুব জরুরি। তাহলে গোটা নগরীই কিন্তু পুড়বে, রেহাই পাবে না রাজ সিংহাসনও। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]