• প্রচ্ছদ » সাবলিড » শেষ মুহুর্তে চন্দ্রায়ণ ২-তে ত্রুটি দেখা দেয়ায় পেছালো ভারতের চাঁদ যাত্রা


শেষ মুহুর্তে চন্দ্রায়ণ ২-তে ত্রুটি দেখা দেয়ায় পেছালো ভারতের চাঁদ যাত্রা

আমাদের নতুন সময় : 16/07/2019

সুস্মিতা সিকদার : চন্দ্রায়ণ-২ চাঁদের উদ্দেশ্য উৎক্ষেপণের মাত্র ৫৬ মিনিট ২৪ সেকেন্ড আগে যান্ত্রিক ত্রুটি ধরা পড়ে। একারণে ইসরো সাময়িকভাবে চন্দ্রাভিযান স্থগিত ঘোষণা করে। এ ব্যাপারে ইসরো এক টুইট বার্তায় জানিয়েছে, মাত্র ৫৬ মিনিট আগে চোখে পড়ে চন্দ্রায়ণ-২’তে কিছু যান্ত্রিক সমস্যা আছে। সে কারণেই চন্দ্রায়ণ-২ আজ মহাকাশের দিকে পাড়ি দিতে পারছে না। নতুন তারিখ পরে জানিয়ে দেয়া হবে। চন্দ্রায়ণ-২ উৎক্ষেপণ উপলক্ষ্যে সেখানে উপস্থিত ছিলেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। বিবিসি,এনডিটিভি, আনন্দবাজার

ইসরো জানিয়েছে, রকেট থেকে জ্বালানি লিক করছিলো। তবে, এক ঘন্টা আগে ইসরোর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিলো চন্দ্রযানটি ওড়ার জন্য তাতে তরল হাইড্রোজেন গ্যাস ভর্তি করে দেয়া হয়েছে।

ইসরোর বক্তব্য, মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার মতো শক্তিশালী ও ব্যয়বহুল রকেট ভারতের নেই। তাই পৃথিবীর চারপাশে পাক খাইয়ে খাইয়ে চন্দ্রযানকে একটু একটু দূরে পাঠানো হবে। নির্দিষ্ট দূরত্বে পৌঁছে গেলে এটি এক লাফে চাঁদের কক্ষপথে ঢুকবে। তারপর ধীরে ধীরে গতি কমিয়ে তাকে চাঁদের দিকে ঠেলে দেয়া হবে। পৃথিবীর চারপাশে পাক খাইয়ে দূরে ছুড়ে দেয়ার এই প্রযুক্তি মঙ্গল অভিযানে প্রয়োগ করা হয়েছিলো এবং সেটি প্রথমবারই সফল হয়েছিলো।

চন্দ্রায়ণ-২ প্রায় ৯৬০ কোটি রুপির প্রকল্প। অভিযানটি স্থগিত হওয়ায় ইসরোর বিজ্ঞানীদের  চোখেমুখে প্রচ- উদ্বেগের ছাপ দেখাগেছে বলে সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়। তবে ইসরো কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, উৎক্ষেপণ নিয়ে চিন্তা নেই। আবহাওয়া অনুকুলে আছে। তবে, চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণ নিয়েই বেশি চিন্তা। সাবেক ইসরো প্রধান জি মাধবন নায়ার বলেছেন, এই জটিল প্রযুক্তি ভারতীয় বিজ্ঞানী ও ইঞ্জিনিয়ারদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ। বিশেষ করে চন্দ্রায়ণ-২ চাঁদের এমন এক স্থানে অবতরণ করবে যেখানে এখনও পর্যন্ত কোন দেশের যান বা মানুষের পা পড়েনি।

চন্দ্রযানের ‘ল্যান্ডার’ বিক্রম নামার কথা দক্ষিণ মেরুর কাছে চাঁদের ৭০ ডিগ্রি অক্ষাংশে। ‘মানজনাস সি’ এবং ‘সিমপেলিয়াস এন’ নামে দুটি গহ্বরের মাঝের একটি উঁচু জমিতে। ৫০ বছর আগে নিল আমস্ট্রং এবং অলড্রিন চাঁদের নিরক্ষরেখার কাছে অবতরণ করেছিলেন। এরপর রাশিয়া ও চীনের ল্যান্ডার নেমেছে উত্তর মেরুর কাছে। চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে কোনও যান এখনও পৌঁছায়নি। ইসরোর বিজ্ঞানীরা জানান, দক্ষিণ মেরুতে সূর্যের আলো পৌঁছায় না বললেই চলে। ফলে, চাঁদের বিবর্তনের ইতিহাসের সূত্র মিলতে পারে সেখানে। তবে যে সূত্রই মিলুক, সেটা ভারতই প্রথম পাবে।

চন্দ্রাভিযান ব্যর্থ হওয়ায় বিশ কিছু বিজ্ঞানী ও গবেষক জানিয়েছেন, চন্দ্রায়ণ-২ নির্দিষ্ট সময়ে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে না পারায় সকলেই একটু হতাশ হয়েছিলেন। কিন্তু তারা জানিয়েছেন, সঠিক সময়ে সমস্যাটি ধরা পড়ায় খুবই ভালো হয়েছে। আশা করা হচ্ছে খুব শীঘ্রই নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে।

উল্লেখ্য, চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে পৌঁছে চন্দ্রযান-২’র যে সব কাজ করার কথা তাহলো, চাঁদে পানির অস্তিত্ব সন্ধান ও প্রানীর বাসযোগ্য পরিস্থিতি আছে কি না সেটা পরীক্ষা করা। যানটির রোভার চাঁদের মাটির রাসায়নিক পরীক্ষা করা, ল্যান্ডার চাঁদের ভূমির কম্পনমাত্রা পরীক্ষা করবে এবং সেই সঙ্গে ভূগর্ভের গঠন বৈচিত্র জানতে গর্ত খুঁড়ে পরীক্ষা নীরিক্ষা চালানো। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]