ব্রহ্মপুত্রের পানি ধরে রাখতে তিব্বতে টানেল নির্মাণ করবে চীন

আমাদের নতুন সময় : 19/07/2019

সুস্মিতা সিকদার : ব্রহ্মপুত্রের পানি চীনের মরুভূমি অঞ্চলে সরবরাহ করার জন্য দেশটি দীর্ঘতম টানেল তৈরির চিন্তাভাবনা করছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় একটি গণমাধ্যম। তবে মঙ্গলবার চীন সরকার এই খবরের সত্যতা অস্বীকার করেছে। দ্য ইকোনমিক টাইমস, আনন্দবাজার।

হংকংয়ের ‘সাউথ চায়না মনির্ং’ জানিয়েছে, তিব্বতের সাংগ্রি প্রদেশ থেকে শিনঝিয়াংয়ের টাকলামাকান মরুভূমিতে প্রায় ১০০০ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি টানেল গড়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। যদিও এই খবর প্রকাশিত হওয়ার পর চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়টি অস্বীকার করেছে এবং বলেছে, এটি ভূয়া খবর।

চীন এই টানেল তৈরি করলে ব্রহ্মপুত্রের জলপথ ঘুরে যাবে । এতে ভারতের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকায় খরা দেখা দেবে। আবার টানেলের পানি ধরে রাখার পর একসঙ্গে ছেড়ে দিলে বন্যায় ভেসে যাবে ওই অঞ্চল।

চীনের এক বিশেষজ্ঞের মতে, আগামী ৫ থেকে ১০ বছরের মধ্যে চীন ওই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারে। তিনি মনে করছেন, ওই সময়ের মধ্যে প্রকল্প গড়ার প্রযুক্তির পাশাপাশি প্রয়োজনীয় অর্থেরও যোগান হয়ে যাবে। প্রস্তাবিত এই টানেল নির্মিত হলে জিনজিয়াংকে ক্যালিফোর্নিয়াতে পরিণত করবে। গবেষকরা গণমাধ্যমকে জানিয়েছে, টানেল নির্মানের জন্য নতুন প্রযুক্তি, প্রকৌশল পদ্ধতি এবং তিব্বত-জিনজিয়াং টানেলের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামগুলোর মহড়া দেয়া হবে।

ভারত ইতিমধ্যেই তিব্বত প্রকল্পের জন্য হুমকির সম্মুখীন। কারণ চীন জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য ঝুম প্রদেশে ওই প্রকল্প চালু করলে ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চল প্লাবিত হবে। তবে চীন ভারতকে আশ্বস দিয়েছে, তারা এমন কিছু করবে না, যাতে ভারত ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ব্রহ্মপুত্রের পানি সরিয়ে নেয়া হলে তার ব্যাপক প্রভাব পড়বে ভারতের উত্তরাঞ্চল ও বাংলাদেশে। এর ফলে এই বিস্তীর্ণ অঞ্চল ব্যাপক খরা ও বন্যার মতো প্রাকৃতিক দূর্যোগের সম্মুখীন হবে বলে ভারতীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে। সম্পাদনা : ইকবাল খান

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]