অনলাইন নিবন্ধনে বিজেপির সদস্য হলেন ইমরান খান!

আমাদের নতুন সময় : 29/07/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় এসেই অনলাইনে নতুন সদস্য সংগ্রহ অভিযান শুরু করেছে ভারতের ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টি-বিজেপি। এই অভিযানে আবেদন করে সদস্যপদ ও পরিচয়পত্র পেয়ে গেছন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। বিজেপির ওয়েবসাইটেই রয়েছে সেই পরিচয়পত্র। এই ঘটনা কৌতুহলের জন্ম দিয়েছে। আনন্দবাজার, এএনআই।

বিজেপির সদস্য হিসাবে ইমরান খানের ডিজিটাল পরিচয়পত্র বেশ ক’দিন ধরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সাহায্যে অনেকের মোবাইলে ছড়িয়ে পড়েছে। যেখানে পরিস্কার তার নাম এবং দেশ লেখা। পরিচয়পত্রটি আহমেদাবাদ শহরের বিজেপির সাধারণ সম্পাদক কমলেশ প্যাটেলের মোবাইলে এসেও পৌঁছায়। বিজেপি সদস্য হিসাবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর নাম দেখে তাজ্জব হয়ে যান তিনি। পুলিশের কাছে এফআইআর দায়ের করেন। তার পরই অবশ্য সবটা পরিস্কার হয়। তদন্তে পুলিশ জানতে পারে, আহমেদাবাদেরই বাসিন্দা গোলাম ফরিদ শেখ নামে এক ব্যক্তি এই কা- করেছে। তার মোবাইল থেকেই প্রথম এই ছবিগুলো একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে পাঠানো হয়। শুক্রবার তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ফরিদের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, ওই ধৃত ব্যক্তি নেহাতই মজার ছলে এই কাজ করেছেন নাকি এর পিছনে কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। কমলেশ প্যাটেলের অবশ্য দাবি, ‘বিজেপির বদনাম করার জন্যই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ধরনের ছবি শেয়ার করেছেন ফরিদ।’

শুধু ইমরান নয়, স্যোশাল মিডিয়ায় বিজেপির সদস্য হিসেবে দেখা যাচ্ছে ধর্ষক রাম রহিম ও আসারামের পরিচয় পত্রও। এগুলোও ফরিদ বানিয়েছেন বলে জানা গেছে। ফরিদ শেখ নিজেও বিজেপির সদস্য হিসাবে অনলাইনে নাম নথিভুক্ত করেছেন। তারপর নিজের ফোন থেকেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, আসারাম এবং রাম রহিম সিংকেও সদস্য হিসাবে অনলাইন রেজিস্টার করিয়ে দেন। অনলাইন রেজিস্টার করালে একটা ভার্চুয়াল মেম্বার কার্ড তৈরি হয়। সেই মেম্বার কার্ডের ছবিই তিনি মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে দেন। সম্পাদনা : কাজী নুসরাত




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]