ব্রেক্সিটের জন্য বাজেটে ব্রিটেনকে গুনতে হবে বাড়তি ২০০ কোটি পাউন্ড

আমাদের নতুন সময় : 02/08/2019

লিহান লিমা: ৩১ অক্টোবরের মধ্যেই ইউরোপিয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য ব্রিটেনকে প্রস্তুত রাখতে দেশটিকে গুনতে হবে বাড়তি দুইশ দশ কোটি পাউন্ড। নির্ধারিত সময়েই চুক্তি কিংবা চুক্তি ছাড়াই ব্রিটেনের বের হওয়া নিশ্চিত করতে এই বাড়তি অর্থ গুনতে হবে। রয়টার্স, এনডিটিভি।

গত সপ্তাহে ক্ষমতায় আসা প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন কোন চুক্তি ছাড়াই তিন মাসের মধ্যে ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন। তিনি বলেন, ইইউ থেরেসার সঙ্গে করা চুক্তি রদ করে নতুন চুক্তিতে রাজি না হলে চুক্তিছাড়াই ব্রিটেনকে বের করে নেবেন তিনি। যদিও ইউরোপ স্পষ্ট বলে দিয়েছে থেরেসার সঙ্গে করা চুক্তি থেকে একচুলও সরবে না তারা।

নতুন অর্থমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ বলেছেন, এই অর্থ দেশজুড়ে প্রচারণা, জরুরি ঔষধ সরবরাহ, বিদেশে বসবাসরত ব্রিটিশ নাগরিকদের সহায়তা, সীমান্ত ও বন্দরের জন্য ব্যয় করা হবে। ব্রিটেনের অর্থমন্ত্রণালয় বলছে, এই অর্থের ৪৩ কোটি ৪০ লাখ পাউন্ড ঔষধ, চিকিৎসা পণ্য সহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পণ্যের সরবরাহ নিশ্চিতের জন্য বরাদ্দ রাখা হবে। ১০ কোটি ৮০ লাখ পাউন্ড ব্যবসায়ীদের সাহায্যের জন্য রাখা হবে। ১৩ কোটি ৮০ লাখ পাউন্ড সচেতনতা মূলক প্রচারণা ও বিদেশে অবস্থিত ব্রিটিশ নাগরিকদের দূতাবাস সেবা সহায়তার জন্য বরাদ্দ রাখা হবে।  ৩৪ কোটি ৪০ লাখ পাউন্ড বরাদ্দ রাখা হবে নতুন সীমান্ত ও কাস্টম ব্যবস্থাপনার জন্য। ৫০০ বাড়তি সীমান্ত রক্ষী মোতায়েন করা হবে। অর্থমন্ত্রণালয় আরো জানায়, এর মধ্যে ১০ কোটি পাউন্ড স্কটল্যান্ড, ওয়ালস ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের জন্য সরকারের বিভাগে রাখা হবে।

ব্রিটেনের লেবার পার্টি এই ব্যয়কে ‘করদাতাদের অর্থের অপচয়’ বলে আখ্যায়িত করেছে। পার্লামেন্টের বেশিরভাগ সদস্যই বলেছেন, চুক্তি ছাড়া কোন পরিকল্পনার বিল রুখে দেবেন তারা। অনেক বিনিয়োগকারীই বলেছেন, চুক্তিবিহীন ব্রেক্সিট বৈশ্বিক অর্থনীতিকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে, ব্রিটেন প্রত্যক্ষভাবে এর শিকার হবে, দেশটির অর্থবাজার অস্থিতিশীল হওয়াসহ আন্তর্জাতিক আর্থিক কেন্দ্র হিসেবে লন্ডনের অবস্থান খর্ব হবে। তবে ব্রেক্সিটের সমর্থকরা বলছে ব্রাসেলেসের আমলাতন্ত্র থেকে বেরিয়ে নতুনভাবে এগিয়ে যাবে ব্রিটেন। সম্পাদনা : ইকবাল খান

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]