১৭৩ বছর পর কাশ্মীর থেকে আলাদা হলো লাদাখ

আমাদের নতুন সময় : 06/08/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : ১৭৩ বছর ধরে জম্মু-কাশ্মীরের অংশ ছিলো লাদাখ। ১৮৪৬ সালে শিখ সা¤্রাজ্য ভেঙে যাওয়ার সময় ইস্ট ইন্ডয়া কোম্পানি জস্মু, কাশ্মীর ও গিলগিট বালটিস্থান দখল করে নেয় শিখদের থেকে। এসময় তিব্বত থেকে দখল করে নেওয়া হয় লাদাখও। পরে গুলাব সিং গঠন করেন প্রিন্সলি বা সামন্ত রাজ্য কাশ্মীর। এরপর জল বহুদুর গড়িয়েছে। বারেবারে বদলেছে কাশ্মীরের মানচিত্র। আলাদা হয়ে গেছে বাদখশান, গিলগিট বালটিস্থান আর আকসাই চীন। কিন্তু লাদাখ সবসময়ই কাশ্মীরের সঙ্গে থেকেছে।

ভারত সরকার জম্মু-কাশ্মীর আর লাদাখকে আলাদা ২টি কেন্দ্রশাষিত অঞ্চল ঘোষণা করেছে। লাদাখে এখন নিযুক্তি পাবে আলাদা এক লেফটেনেন্ট গভর্নর। লাদাখ সবসময় ঐতিহাািসক সিল্করুটের অংশ ছিলো। কাশগড় থেকে এই পথেই ইউরোপ যেতো পণ্যবাহী কাফেলা। ঝান্সকার নদীর পাশ দিয়ে আজকাল লেহ-কারগিল হাইওয়েতে চলে মোটরগাড়ি। কিন্তু লাদাখ কখনই কাশ্মীর ছিলো কিনা এই প্রশ্ন থেকেই যায়। প্রসঙ্গত এই প্রতিবেদকের একটি ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা বর্ণনা করা যায়। বিশে^র জনপ্রিয়তম রিভার ট্রেক ঝান্সকারের চাদ্দার। ফেব্রুয়ারি মাসের প্রচ- ঠান্ডায় কারগিলের কাছাকাছি নিজেদের বাড়ি থেকে লেহ’র স্কুলে যাচ্ছিলো একদল শিশু, এই ভয়ানক পথ ব্যবহার করে। তাবুর পাশে আগুনের ধারে বসে চা খেতে খেতে তাদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিলো কাশ্মীরি হিসেবে তাদের কোনো চাওয়া পাওয়া আছে কিনা। সেই শিশুরা, তাদের দুই অভিভাবক বড় বড় চোখে তাকিয়ে বলেছিলেন, কাশ্মীরিদের সঙ্গে তাদের কি সম্পর্ক, তারা তো লাদাখি!

লাদাখ ঐতিহাসিকভাবে তিব্বতের অংশ ছিলো। আজ তা ভারতের অংশ। লাদাখ ভূকৌশলগতভাবে অতি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে থাকায় বারেবারে তাকে নিয়ে রাজনীতি হয়েছে। হয়তোবা নতুন করে আবারও রাজনীতির শিকার হলো ভারতে তিব্বতি সংস্কৃতির ধারক লাদাখিরা। এরপরেও হয়তো তারা শূণ্যের নিচে থাকা তাপমাত্রায় কানে শেয়ালের লোমের টুপি লাগিয়ে আগুনের ধারে বসে চা থেতে খেতে সব রাষ্ট্রযন্ত্রকে অস্বীকার করে বলবে আমরা তিব্বতি না, ভারতীয় না, কাশ্মীরি না, আমরা লাদাখি। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]