• প্রচ্ছদ » » কাশ্মীরের প্রতি ভারতের চ‚ড়ান্ত বিশ্বাসঘাতকতা


কাশ্মীরের প্রতি ভারতের চ‚ড়ান্ত বিশ্বাসঘাতকতা

আমাদের নতুন সময় : 07/08/2019

মাসুদ রানা

কাশ্মীরীদের সঙ্গে ভারত তার ঐতিহাসিক বিশ্বাসঘাতকতার চ‚ড়ান্ত রূপ দিলো কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল ও দেশটিকে দু’ভাগে বিভক্ত করে কেন্দ্রীয় শাসনের অধীনে নিয়ে আসার মাধ্যমে। ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন অবসানের অব্যবহিত পর কাশ্মীরের জনগণের মতামতকে অগ্রাহ্য করে সেখানকার রাজা যে শর্তে ও বিশ্বাসে ভারতে যোগ দিতে সম্মত হয়েছিলেন তার সাংবিধানিক রূপ হিসেবেই কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দিয়ে তার আপেক্ষিক স্বায়ত্তশাসন দেয়া হয়, যাতে কাশ্মীর দেশটি তার স্বতন্ত্র অস্তিত্ব হারিয়ে না ফেলে। কিন্তু ভারতের হিন্দুত্ববাদী সরকার আজ সেই শর্ত ও বিশ্বাস চ‚ড়ান্তরূপে ভঙ্গ করলো। স্বভাবত স্বাধীনতাকামী কাশ্মীরীদের সংগ্রামের রূপও এখন পরিবর্তিত হবে। বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সংগ্রামের চেতনা, শক্তি-সমাবেশ রণনীতি ও রণকৌশল ও কর্মসূচি নতুন আকারে ও প্রকারে ভাবতে হবে।
২. কাশ্মীরের স্বাধীনতার মন্ত্র : ধর্মবাদ নয় জাতীয়তাবাদ। ঔপনিবেশিক ভারতীয় হিন্দুত্ববাদের বিরুদ্ধে পাকিস্তানপন্থী ইসলামবাদ নয়, বরং ধর্মনিরপেক্ষ কাশ্মীরী জাতীয়তাবাদই কাশ্মীরের স্বাধীনতার আন্দোলনকে তার যৌক্তিক পরিণতিতে বিকশিত হতে সাহায্য করবে। কাশ্মীরীরাসহ ভারত ও পাকিস্তানের স্বাধীনতাকামী সকল জাতির জন্যে বাঙালি জাতির ১৯৭১ সালের ধর্মনিরপেক্ষ বাঙালি জাতীয়তাবাদী স্বাধীনতার যুদ্ধ একটি অতি আবশ্যিক পথনির্দেশ হয়ে থাকবে। কাশ্মীরীদের উচিত হবে বাঙালি জাতির পূর্ব-খÐ থেকে ঐতিহাসিক শিক্ষা গ্রহণ করা। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]