• প্রচ্ছদ » » কাশ্মীর সমস্যা শেষ হলে তাদের উপকার সব থেকে বেশি


কাশ্মীর সমস্যা শেষ হলে তাদের উপকার সব থেকে বেশি

আমাদের নতুন সময় : 07/08/2019

গৌতম চক্রবর্তী

ভারত চীন পাক মিলে বেশ ভাগাভাগি হয়ে গেলো। অনেকটা বেলুচদের মতো। প্রতিবেশীরা খানিক লাফালাফি করবে বটে, তবে চুপও করে যাবে। ভাগ যে সবাই পেয়েছে। পাকিদের সব থেকে খারাপ অবস্থা, আপাতত ভিক্ষা করে বেড়াচ্ছে সারা পৃথিবীতে। কাশ্মীর সমস্যা শেষ হলে তাদের উপকার সব থেকে বেশি। কে জানে, এটা হলে হয়তো সেনাবাহিনীর প্রভাব কমে রাজনৈতিক প্রভাব বাড়বে পাকিস্তানের রাজনীতিতে। ইমরানের এতে খারাপ লাগার কারণ নেই, বরং খুশি হওয়ার কথা। চীন অর্থনৈতিক করিডোর নিয়ে হেব্বি টেনশনে ছিলো, হাজার হলেও ভারতের একটা নৈতিক দাবি ছিলো ওই জায়গার উপর, যেখান দিয়ে চীন রাস্তা বানাচ্ছে। হাজার লাখ ডলার ওখানে ঢুকে বসে আছে চীনের। এখন আর সেসব দায় রইলো না, ফলে মনে মনে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে বেইজিং।
আর ভারতও জানে, পরমাণু শক্তিধর পাকিস্তানের থেকে ওদের দখল করা কাশ্মীর ফেরত পাওয়া সম্ভব নয়। তাই যতোটুকু পাই সেটা ভালোয় ভালোয় নিয়ে নেয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। ফলে উপমহাদেশে হয়তো উত্তেজনা কমবে। হয়তো কয়েক বছর পরে চীনের স্বপ্নের অর্থনৈতিক করিডোরে ভারতও যোগ দিতে পারে। এর প্রস্তাব অনেক আগেই চীন দিয়ে রেখেছে ভারতকে। দিনের শেষে সবটাই ব্যবসা স্যার, ব্যবসার জন্যই সব। ওখানে ধর্ম দেশপ্রেম জাতীয়তাবাদ সব এক একটা জামা মাত্র। নেতাদের যখন যেটা প্রয়োজন তখন সেটা গায়ে চাপিয়ে নেয়। আপনার আমার মতো আমপাবলিকের চোখে ঠুলি পরিয়ে রাখার জন্য। বাদ দিন। এতে যদি সবাই শান্ত আর খুশি থাকে, যদি যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা বন্ধ হয়। যদি মানুষ মারার রাজনীতি বন্ধ হয়। তবে খুশি থাকুন।
আর রইলো কাশ্মীরীদের কথা। ওদের কেউ ভারতীয় কেউ পাকিস্তানি কেউবা চীনা হয়ে বেঁচে থাকবে। আরে এমন তো বহুবার হয়েছে পৃথিবীর ইতিহাসে। আমরা বাঙালিরাও কি পেরেছি এক সঙ্গে এক দেশে থাকতে? তাই ওসব কেতাবি বুলি না আউড়ে চেপে যান। বিশ্ব রাজনীতির আঙিনায় আপনি পুতুল মাত্র। যা বোঝানো হয় তাই বোঝেন, যা দেখানো হয় তাই দেখেন। আদপে এখানে কোনো আওকাত নেই আপনার। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]