• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী ফেরী ও নৌ-রুটে অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিআইডব্লিউটিএর ৬ ড্রেজার মোতায়েন


শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী ফেরী ও নৌ-রুটে অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিআইডব্লিউটিএর ৬ ড্রেজার মোতায়েন

আমাদের নতুন সময় : 07/08/2019

নৌযান লৌহজং চ্যানেল এবং ফেরি নতুন খনন করা বিকল্প চ্যানেলে চলাচলের পরামর্শ
আনিস তপন : কোনও কারণে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী ফেরি-রুটে নৌ-চলাচল ব্যাহত হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ বির্পযয়ের এড়াতে কাজ করছে অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)।
আসন্ন ঈদে এসব পথে বাড়ির পথে আসা-যাওয়ার সময় কোনো ধরনের অনাকক্সিক্ষত পরিস্থিতি মোকাবেলায় ও নৌ-চলাচল নির্বিঘœ রাখতে লৌহজং টার্নিং পয়েন্ট এলাকার ২ কিলোমিটার ভাটিতে প্রায় ২ কিলোমিটার দৈর্ঘের একটি বিকল্প চ্যানেল ব্যবহারের জন্য খুলে দিয়েছে। এখন সেই চ্যানেল দিয়েই ফেরি চলাচল করছে। এছাড়া লঞ্চগুলো লৌহজং টার্নিং এলাকার পুরাতন চ্যানেল দিয়ে চলাচল করছে বলে জানিয়েছেন বিআইডব্লিউটিএর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (ড্রেজিং) ছাইদুর রহমান। তিনি বলেন, জুলাই-সেপ্টেম্বর মাসে এখানে প্রবল ¯্রােতের সৃষ্টি হয়। এ সময়ে ফেরি চলাচল বাধাগ্রস্ত হয়। উজান থেকে আসা পলিতে নৌ-চ্যানেল ভরাট হতে থাকায় এবং প্রবল ¯্রােতের কারণে লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে দিয়ে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়।
বর্তমানে বিআইডব্লিউটিএ’র নিজস্ব ৬টি ড্রেজার বিকল্প চ্যানেলগুলোর আরোও প্রশস্ততা ও গভীরতা বৃদ্ধির জন্য ড্রেজিং করা হচ্ছে। তিনি আশা করেন ১৫ আগস্ট পর্যন্ত এ পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকবে। এর পরে পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে এমন আশঙ্কায় এখন থেকেই প্রস্তুত রয়েছেন তারা।
পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া পাটুরিয়া প্রান্তে বর্তমানে সর্বনি¤œ ১৩ ফুট, দৌলতদিয়া প্রান্তে সর্বনি¤œ ২০ ফুট পানি রয়েছে। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ঘরমুখো মানুষ নাব্যতা সংকটে ভোগান্তির শিকার হবে না। তাছাড়া লাহারহাট-ভেদুরিয়া ফেরিরুটে সর্বনি¤œ ১০ ফুট, হরিনা-আলুবাজারে সর্বনি¤œ ১৪ ফুট পানি রয়েছে। ঢাকা-বরিশাল নৌ-পথে সর্বনি¤œ ১২ ফুট, ঢাকা-পটুয়াখালী ১০ ফুট, পটুয়াখালি-গলাচিপা ১০ ফুট, ঢাকা-ভোদুরিয়া ১২ ফুট, মিরকাদিম নদীবন্দর ১৬ ফুট, বরিশাল নদী বন্দর ১২ ফুট, পটুয়াখালী নদীবন্দর ১২ ফুট, ভৈরব-ছাতক ১৬ ফুট পানি রয়েছে। এসকল নৌ-পথে লঞ্চ/স্টিমার, কার্গোসহ অন্যান্য নৌযানসমূহ নির্বিঘেœ চলাচল করছে।
এছাড়াও পাটুরিয়া-বাঘাবড়ি ১৬ ফুট, খুলনা-নোয়াপাড়া ১২ ফুট, খুলনা আংটিয়ারা ১০ ফুট, নরসিংদি-সলিমগঞ্জ ১৭ ফুট, হোমনা-বাঞ্জারামপুর ১৬ ফুট, গাগলাজোড়-মোহনগঞ্জ ১৫ ফুট এবং মংলা-ঘাষিয়াখালী চ্যানেলে সর্বনি¤œ ১২ ফুট পানির গভীরতা রয়েছে। সম্পাদনা : রেজাউল আহসান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]