• প্রচ্ছদ » » কাশ্মীরে ভারতের নগ্ন আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে দুকলম লিখে রাখুন


কাশ্মীরে ভারতের নগ্ন আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে দুকলম লিখে রাখুন

আমাদের নতুন সময় : 08/08/2019

আরিফ জেবতিক

ডেঙ্গু নিয়ে লিখলে কাশ্মীর নিয়ে লেখা যাবে না, আমাদের দেশের পাহাড়িদের নিয়ে না লিখলে কাশ্মীর নিয়ে লেখা যাবে না… বিষয়টা এমন নয়। ইয়েমেন নিয়ে লিখেননি বলে, উইঘুর নিয়ে লিখেননি বলে কাশ্মীর নিয়ে লেখা যাবে না, ফেসবুকের এসব লাইসেন্সবাদী কথায় চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। আর একথাও ঠিক যে ফেসবুকে আপনার বাংলায় লেখা দু লাইনের স্ট্যাটাস কাশ্মীরীদের কোনো উপকারেও লাগবে না। তবু কাশ্মীরে ভারতের এই নগ্ন আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে আপনি দুকলম লিখে রাখুন। অন্য কারও জন্য নয়, আপনার নিজের জন্য। যদি বেঁচে থাকেন, আজ থেকে কুড়ি বছর পরে টাইমলাইনের মেমোরিতে যখন আজকের দিনটি আবার ফিরে আসবে তখন আপনি দেখবেন যে, এই একবিংশ শতাব্দীতেও সা¤্রাজ্যবাদের আগ্রাসন ছিলো এবং আপনি তার বিরুদ্ধে কথা বলেছিলেন। এক আন্তর্জাতিকতা তখনও আপনার মাঝে ছিলো। শুধু ইতং বিতং পেটি ইস্যু আপনাকে আন্দোলিত করতো এমন নয়। যে কালে, যে সময়ে বেঁচে ছিলেন সেকালের সেসময়ের নির্যাতিত বিশ্ব মানবতার পক্ষে আপনারও হৃদয় কাঁদতো। আপনি তখনো মানুষ ছিলেন। কাশ্মীরে ভারতীয় আগ্রাসন নিপাত যাক। ১. ইয়াসিন ফিদা হোসেন- আপনার বাংলায় লেখা দু লাইনের স্ট্যাটাস কাশ্মীরিদের কোনো উপকারেও লাগবে না। লাগতেও তো পারে, ২ কোটি মানুষের ২ লাইনে ৪ কোটি লাইন হবে। কিছু না লিখলে যে কাজে লাগবে না, এটা নিশ্চিত। কিন্তু কিছু লিখলে কাজে লাগবে কিনা, সেই নিশ্চয়তা তো দেয়া যায় না। ২. শাহ আজিজ- তিনদিক দিয়ে ঘিরে থাকা তিন লুটেরা এখন নিরাপদ ভাবছে উমর কাশ্মীরকে ভোগে মত্ত হতে। একজন বেধার্মিক আর দুইজন ধর্মীয় জঙ্গি একটা স্থির নিশানায় পৌঁছে গেছে যে, এখন আর কোনো বিপদ নেই বিবাহ বা তালাকে। ভারতের মন্দির সেবাদাসী, পাকের যৌনদাসী আর চীনের কনকিউবাইন হয়ে কাশ্মীরের নতুন যাত্রা শুরু হলো। তাদের গর্জে ওঠার সব পথ বন্ধ। বাগদাদী কিছুদিন আগেও আফগান সীমান্তে ছিলো। তার দলবল এখন ত্রি-কাশ্মীরের সহায়ক শক্তি, আমি আইএসকে সমর্থন করি না, কিন্তু এক্ষেত্রে তারাই হবে নিয়ামক শক্তি। একাত্তর সালে আমাদের দিকে ফিরে না তাকানো কাশ্মীরিদের শুধু এইটুকু আশা জ্ঞাপন। বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]