• প্রচ্ছদ » » বন্ধু-সহপাঠীদের স্মৃতিতে শেখ কামাল


বন্ধু-সহপাঠীদের স্মৃতিতে শেখ কামাল

আমাদের নতুন সময় : 08/08/2019

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় চেলে শেখ কামালকে তার ৭০তম জন্মবার্ষিকীতে স্মরণ করলেন তার বন্ধু, সহপাঠী ও সহ-খেলোয়াড়রা। ৫ আগস্ট জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘বহুমাত্রিক শেখ কামাল’ শীর্ষক স্মৃতিচারণমূলক আলোচনা সভার আয়োজন করে সম্প্রীতি বাংলাদেশ নামের একটি সংগঠন। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শেখ কামালের বন্ধু বর্তমানে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, ‘এখন মনে হচ্ছে এই তো ইউনিভার্সিটির করিডোরে ঘুরছি, খেলার মাঠে আছি, সেখানে শেখ কামালও আছেন’। ‘আমার রাজনীতিতে আসা, এখন যে অবস্থান, এসবের অবদান আমি শেখ কামালকে দিতে চাই। আমি প্রত্যক্ষভাবে রাজনীতিতে আসলাম তার কারণে।’ তিনি বলেন, ‘আমি পুরান ঢাকায় বড় হয়েছি। পড়াশোনা, আড্ডা, রাজনীতি সব কিছু এই শহর থেকে শুরু। আইয়ুব-মোনায়েমের আমালে আমাদের বন্ধুরা শহরের যেসব জায়গাতে আড্ডা দিতাম, রাজনীতি নিয়ে কথা বলতাম, সেখানে আমাদের অন্যতম ব্যক্তি ছিলেন কামাল।’
স্মৃতিচারণ করে আওয়ামী লীগের যুব ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশিদ বলেন, ‘আমি শেখ কামালের ক্রীড়াঙ্গনের সহচর ছিলাম। কামাল অতি সাধারণ মানুষ ছিলেন। তিনি রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধুর ছেলে এমন মনোভাব ছিলো না। তিনি বিলাসী জীবনযাপন করেননি, অতি সাধারণ জীবনযাপন করতেন। ‘শেখ কামাল কেবল ক্রীড়াবিদই ছিলেন নন, তিনি ক্রীড়া সংগঠক ছিলেন। তিনি নাট্যকারও ছিলেন। তিনি ছাত্রনেতা ছিলেন, তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা। তিনি যে বহুমাত্রিক গুণের অধিকারী ছিলেন এতে কোনো সন্দেহ নেই। তিনি চিন্তা-চেতনায় অনেক দূরদর্শী ছিলেন।’ শেখ কামালের আরেক বন্ধু ও একাত্তরের সহযোদ্ধা অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল সাঈদ মাসুদ বলেন, ‘শেখ কামালের সঙ্গে আমার পারিবারিকভাবে সুসম্পর্ক গড়ে উঠে। তার মন ছিলো অনেক বড়। অনেক সময় ঢাকার বাইরে কোথাও গেলে আমাকে সঙ্গে নিয়ে যেতো।’ স্বাধীনতা যুদ্ধের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘যুদ্ধকালীন সময় সে অনেক প্রাণবন্ত থাকতো, আমাদের হাসিখুশিতে রাখতো। কখনো কখনো গান-বাজনা করে আমাদের উল্লসিত করে রাখতো।’ কৈশোরে কামালের বন্ধু অবসরপ্রাপ্ত মেজর দোস্ত মোহাম্মদ জানালেন, একটা স্কুল বদলালেও বন্ধুত্বে ছেদ পড়েনি কখনো। ‘একজন রাষ্ট্রপতির ছেলে হয়েও তার মধ্যে বন্ধুত্বের কোনো ভোদাভেদ ছিলো না। সবাইকে সহজে আপন করে নিতেন।’ শেখ কামালের সঙ্গে খেলাধুলা করেছেন জালাল আহমেদ চৌধুরী। তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর পর বাংলাদেশে ক্রিকেট অস্তিত্বের সংকটে পড়েছিলো, সে অবস্থা থেকে শেখ কামালই উত্তরণ ঘটিয়েছিলেন। সম্প্রীতি বাংলাদেশের সদস্য সচিব মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল বলেন, ‘শেখ কামালকে নিয়ে চর্চা অনেক কম, এই চর্চা বাড়াতে হবে। যার মাধ্যমে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমরা আরও এগিয়ে যাবো।’ সংগঠনের আহŸায়ক ও শেখ কামালের বন্ধু পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ‘ক্রীড়াঙ্গনে শেখ কামাল’ শীর্ষক একটি প্রামাণ্যচিত্রও দেখানো হয়। সূত্র : বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]