• প্রচ্ছদ » » পিএইচডির পর কেউ দেশে একটি চাকরি পাবে না, তা মানা যায়?


পিএইচডির পর কেউ দেশে একটি চাকরি পাবে না, তা মানা যায়?

আমাদের নতুন সময় : 10/08/2019

কামরুল হাসান মামুন

ইতালির মিলান পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, যাকে তাদের ভাষায় এটিকে চড়ষরঃবপহরপড় ফর গরষধহড় বা সংক্ষেপে চড়ষরগর বলে ডাকে। বলা হয়ে থাকে ইউরোপের এমআইটি। এর কিউএস ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং ১৬০-এর মধ্যে। সেরকম একটি প্রতিষ্ঠান থেকে কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পিএইচডি করে এসেছে আমার পরিচিত একজন ছাত্র। বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আজ ৩-৪ বছর যাবৎ ইন্টারভিউ দিচ্ছে, কিন্তু চাকরি হচ্ছে না। তারা ধরে নিচ্ছে এটা নিশ্চয়ই আমাদের দেশের পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের মতো একটি প্রতিষ্ঠান। এই হলো আমাদের জানার দৌরাত্ম্য। ছেলেটি পিএইচডি করেও চাকরি পাচ্ছে না। ভারতে এখন নিয়ম হয়ে গেছে যে ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিংয়ে ৫০০-র মধ্যে থাকা কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে পিএইচডি করলে সরাসরি সহকারী অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ। অথচ এই ছেলেটি ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং ১৬০-এর মধ্যে থাকা প্রতিষ্ঠান থেকে পিএইচডি করেও আজ ৪ বছর যাবৎ বাংলাদেশে শিক্ষক বা গবেষক পদে চাকরি পাচ্ছে না।
২. পোস্ট-ডক পাওয়া বেশ কঠিন। একবার কোনো কারণে একাডেমিক গ্যাপ হয়ে গেলে আরও কঠিন হয়ে যায়। ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে করলেই সবাই পোস্ট-ডক পায় না। তাছাড়া ওর হয়তো ব্যক্তিগত বা পারিবারিক কিছু থাকতে পারে। কিন্তু যেটাই হোক পিএইচডির পর বাংলাদেশের মতো একটি দেশে একটি চাকরি পাবে না এটা মানতে পারি না। রাগীব হাসান আরেকটা উদাহরণ দিই… পাশ্চাত্যের অনেক দেশেই সার্টিফিকেটকে ‘ডিপ্লোমা’ বলা হয়, সার্টিফিকেটের মধ্যেও ডিপ্লোমা কথাটা লেখা থাকে। সেরকম ডিগ্রিপ্রাপ্ত অনেককেই বাংলাদেশে হেনস্তা হতে হয়েছে… তারা পিএইচডির নাম করে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারের ডিগ্রি চালিয়ে দিচ্ছে এই অপবাদে। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]