• প্রচ্ছদ » » আমরা এখন শোকের নামে মাতম করি বটে, বঙ্গবন্ধু ও তার জীবনকে কলঙ্কিত করার অপচেষ্টা সাফ করার কথা বলি না


আমরা এখন শোকের নামে মাতম করি বটে, বঙ্গবন্ধু ও তার জীবনকে কলঙ্কিত করার অপচেষ্টা সাফ করার কথা বলি না

আমাদের নতুন সময় : 11/08/2019

অজয় দাশগুপ্ত

তখন ওয়ান ইলেভেনের সময়কাল। আওয়ামী লীগ কি নেতৃত্ব নিয়ে দ্ব›দ্ব করবে, না ভাঙবে, এমন সন্দেহ ঘনীভ‚ত হচ্ছিলো। সেসময় লন্ডনে থাকা শেখ রেহানার একটি ফোন সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম। যা জনকণ্ঠের প্রথম পাতায় ছাপা হয়েছিলো। সে সাক্ষাৎকারে শেখ রেহানা অনেক গুরুত্বপূর্ণ কথার ভেতর এমন একটি কথা বলেছিলেন, যা আমি সারাজীবনের জন্য তুলে রেখেছি। তিনি জানতে চেয়েছিলেন কোন পত্রিকার জন্য এই ইন্টারভিউ? আমি তাকে প্রশ্ন করেছিলাম জামায়াতি বা রাজাকারের পত্রিকা না হলেই কি চলবে? তিনি অবাক করে দিয়ে বলেছিলেন, না। চলবে না। তার কথায় সারল্য থাকলেও যুক্তি ছিলো অকাট্য। তিনি বলছিলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু এগুলোর বাইরেও তিনি তাদের পিতা। জন্মদাতা জনক। তাকে নিয়ে বৈরী বা মন্দ কিছু বললে তারা যতোই প্রগতিশীল হোক না কেন, তিনি তাদের কাগজে ইন্টারভিউ দেবেন না। এও বললেন, দুনিয়ায় অনেক ভালো কিছু আছে পড়ার ও দেখার। এসবের দিকে ফিরে তাকাতেও নারাজ তিনি। কথাগুলো আমার মনে রয়ে গেছে। সত্যি তো। বঙ্গবন্ধু বা তার মতো মানুষকেও আমরা কতোভাবে সমালোচনার নামে নিন্দা করি। এসব করতে করতে ধীরে ধীরে এমন এক জাতিতে পরিণত হয়েছি যে, তার আপন মা-বাবাকেও আর শ্রদ্ধা করে না। অগাস্ট মাস এখন যেমন তখন এমনটা ছিলো না। পঁচাত্তরের সে দিনগুলোতে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে পাওয়া অলংকার আর সম্পত্তির এক বিবরণ ছাপা হয়েছিলো। প্রমাণ করার জন্য যে, তিনি ছিলেন লোভী। সে তালিকা পাঠ করলে এখন কোনো ফকিরও হেসে ক‚ল পাবেন না। মোশতাক আমলের সে তালিকা প্রণয়ন, বাসন্তীকে জাল পরিয়ে ছবি তোলা, বাকশাল নিয়ে গুজব ছড়ানো মানুষগুলোর অনেকেই এখন লাইম লাইটে। তারা এখন বঙ্গবন্ধু বলে মুখে ফেনা তুললেও তখনকার ইতিহাস মিথ্যা হয়ে যায়নি। আমরা এখন শোকের নামে মাতম করি বটে, বঙ্গবন্ধু ও তার জীবনকে কলঙ্কিত করার অপচেষ্টা সাফ করার কথা বলি না। তিনি কি আসলেই বাঙালিকে মার্জনা করেছেন? ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]