• প্রচ্ছদ » » বিজ্ঞানীদের সব সময় ধর্ম, সমাজ এবং রাজনীতি নিয়ে সাদাসিধে বক্তব্য দিতে নেই


বিজ্ঞানীদের সব সময় ধর্ম, সমাজ এবং রাজনীতি নিয়ে সাদাসিধে বক্তব্য দিতে নেই

আমাদের নতুন সময় : 11/08/2019

মোজাম্মেল হোসেন তোহা

আমেরিকায় ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পর পর দু’টা মাস শুটিংয়ে ৩৪ জন মারা গেছে। যে কারণে এটা নিয়ে বাংলাদেশের ফেসবুকোস্ফিয়ারে বেশি আলোচনা হয়নি সেটা হচ্ছে, এই দুই মাস শুটিংয়ের পেছনে কোনো ইসলামপন্থী গ্রæপ ছিলো না, দুইটাই খ্রিস্টান হোয়াইট সুপ্রিমেসিস্টদের কাজ। যদি ইসলামপন্থী কোনো গ্রæপ দায় স্বীকার করতো, তাহলে আমাদের এক অংশ ইসলামকে দায়ী করে পোস্ট দিতে পারতো, এক অংশ অ্যাপোলজেটিক স্ট্যাটাস দিতে পারতো, আরেক অংশ দায় এড়ানোর জন্য এর পেছনে ইহুদিদের ষড়যন্ত্র খুঁজে বের করার চেষ্টা করতো। হোয়াইট সুপ্রিমেসিস্ট হওয়ায় কেউ আর কোনো স্ট্যাটাস দেয়ার দায় অনুভব করছে না। আমেরিকানরা অবশ্য এবার অনেক চেঁচামেচি করছে। বলা যায় অন্যান্য মাস শুটিংয়ের তুলনায় একটু বেশিই করছে। এর প্রধান কারণটা সম্ভবত পলিটিক্যাল। লেটেস্ট শুটারের লিখে যাওয়া মেনিফেস্টোতে ট্রাম্পের বহুল ব্যবহৃত অনেকগুলো ¯েøাগানের উল্লেখ পাওয়া গেছে। পরিষ্কারভাবেই সে ট্রাম্প দ্বারা প্রভাবিত। তবে এক আমেরিকানের বক্তব্য আমার কাছে সবচেয়ে মজার লেগেছে। তিনি হচ্ছেন বিজ্ঞানী নীল ডিগ্রাস টাইসন। এই অসময়ে তিনি একটা ‘সদাসিধে’ টুইট করেছেন। ৪৮ ঘণ্টায় ৩৪ জন মারা গেছে উল্লেখ করে তিনি স্ট্যাটিস্টিক্স দিয়েছেন, গড়ে যেকোনো ৪৮ ঘণ্টায় মেডিকেল এররে মারা যায় ৫০০ জন, ফ্লুতে মারা যায় ৩০০ জন, আত্মহত্যায় মারা যায় ২৫০ জন, কার অ্যাক্সিডেন্টে মারা যায় ২০০ জন, আর সাধারণ হত্যাকাÐে মারা যায় ৪০ জন। শেষে তিনি মন্তব্য করেছেন, আমাদের প্রায় সময়ই তথ্যের তুলনায় দৃশ্য দ্বারা বেশি আবেগতাড়িত হই। এই না হলে আর বিজ্ঞানী। বলাই বাহুল্য, তার টুইটারের রিপ্লাই সেকশনে ঝড় বয়ে যাচ্ছে। কমেডিয়ান ট্রেভর নোয়ার ভাষায়, তার বক্তব্য স্ট্যাটিস্টিক্যালি সঠিক, কিন্তু সেটা কি এই মুহূর্তে বলার সময়? কেউ মারা গেলে তার ফিউনারেলে গিয়ে কি বলা উচিত, আমি তার কাছ থেকে এতো টাকা পেতাম? নীল ডিগ্রাস টাইসন এর আগে রোজার ঈদের সময় চাঁদ দেখা সংক্রান্ত একটা আয়াতের/হাদিসের হাস্যকর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দিয়েও বেশ সমালোচিত হয়েছিলো। মোরাল : বিজ্ঞানীদের সব সময় ধর্ম, সমাজ এবং রাজনীতি নিয়ে সদাসিধে বক্তব্য দিতে নেই। তারা গবেষণায় মনোযোগ দিলে সেটাই জাতির জন্য বেশি কল্যাণকর হতে পারে)। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]