ডাক্তার সংকটে! ইকবাল আনোয়ার

আমাদের নতুন সময় : 17/08/2019

ডাক্তার আজ সংকটে। ডেঙ্গু নিয়ে যারা আছেন তারা আরো বেশী। রাত দিন ডেঙ্গু রোগীর চিকিৎসারত চিকিৎসক। ঈদে বাড়ী আসেনি। সেটা বড়ো না, জাতীর প্রয়োজনে কাজ করবে, তার সামনে ভয়ানক ডেঙ্গুতে মরছে মানুষ। এমতাবস্থায় শিরায় ফ্লুইড মেনেজমেন্ট অত্যন্ত গননা নির্ভর, বার বার পরীক্ষানির্ভর, একজনের কাছে একজন থাকার মতো। এ দেশের চিকিৎসক মেধাবী, পরিশ্রমি।

ডাক্তার ক জন তো চলেই গেলো। ডাক্তারের সন্তান গেলো। ডাক্তার মশার কামড় খাচ্ছে, হাসপাতালে রোগীর বেডের পাশে। তারতো মশারীর ভিতর থেকে চিকিৎসা করার সুযোগ নাই।

মশার কামড় খাবার সঙ্গে সঙ্গে তার মনে ভীতি, যতো না নিজের জন্য, তার চেয়ে বেশী, বাড়ীতে চালান করে ভাইরাস নেবার জন্য, যেখানে তার সন্তান, আপন জন। ডাক্তারের পাশের লোকজন যেমন ড্রাইভার আক্রান্ত। একক ঘনত্বের কারণে ডাক্তারের ঝুঁকি বেশী।

তবু তারা অকুতভয় সেনানীর মতো। মানা তো করছেই না, ঝুঁকি ভাতাও চাচ্ছেনা।

স্ব পেশার মানুষের প্রতি মমতা না দেখালে, তাঁদের কথা না লিখলে, আমি অমানুষই থাকবো।

এমনিতেই ডাক্তার এ দেশে বিগত কয়েক বছর যাবৎ অনেক ঝুঁকিতে কাজ করে। অনিয়ম, দুর্নীতি নৈতিকতা বর্জিত ব্যস্থাপনার শিকার মেধাবী চিকিৎসকেরা।

তারা নিরাপদ নয়। তাদের বডি গার্ড নেই। তাঁদের মধ্যে তরুণদের চোখে আমি তাকাতে পারিনা। যেনো তারা ভান করে হাসছে।

যে জাতি সন্মান ও স্বীকৃতি দিতে জানেনা, তাদের প্রতি দায়িত্বের জড়তা আসা স্বাভাবিক।

আমি বড়ো ভারাক্রান্ত মন নিয়ে আজ বলছি। যারা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত চিকিৎসক সহ, যারা ঝুঁকিতে আছেন, যারা চলে গেছেন, তাদের জন্য সকলের কাছে বিশেষ ভাবে দোয়া কামনা করছি। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]