• প্রচ্ছদ » » গোপনে এতো বড় বড় জঙ্গির খোঁজ করে ধরা যায় আর দেশজুড়ে চামড়া খেয়ে ফেললো প্রকাশ্যে, এর হদিস মিলছে না!


গোপনে এতো বড় বড় জঙ্গির খোঁজ করে ধরা যায় আর দেশজুড়ে চামড়া খেয়ে ফেললো প্রকাশ্যে, এর হদিস মিলছে না!

আমাদের নতুন সময় : 20/08/2019

জিয়া শাহীন

চামড়ার দাম অনেক আগে থেকেই নেই। কথায় কথায় বড় পর্যায়ের মানুষ বলে,‘চামড়া তুলে নেবো’। মানুষও ভাবে আসলে চামড়া আমার নেই। ওটা তুলে নিয়েছে। গরু,খাসি,ভেড়া,মহিষের চামড়ার কথা বলছেন? ওটা পক্ষান্তরে মানুষের চামড়াই। মানুষের কষ্টের ফসল। সেটাও তুলে নিয়েছে। প্রাণী সম্পদ বিভাগ বগুড়া বলছে, বগুড়ায় এবার ৩২৭০০০ হাজার কোরবানি হয়েছে। চামড়া ব্যবসায়ী মালিক সমিতি বলছে, এ পর্যন্ত ৬০০০০ হাজার চামড়া কেনা হয়েছে। কিছু এলাকায় লবণ দিয়ে রাখা হয়েছে। ধরে নেয়া যেতে পারে ৫০০০০ হাজারের বেশি হবে না। কারণ উপজেলা পর্যায়ে কোরবানির আগে অতো লবণ কেনার খবর পাওয়া যায়নি। বলতেই হয় তাহলে বাকি কাঁচা চামড়া গেলো কোথায়? পাচার হলো নাকি দাম কমের কারণে গরুর ভুড়ির মতো খেয়ে (আগে গরুর ভুড়ি ঘৃণা করতো, এখন জনপ্রিয়) ফেললো! চামড়া রহস্য কোথায়? গোপনে এতো বড় বড় জঙ্গির খোঁজ করে ধরে ফেলে আর দেশজুড়ে চামড়া খেয়ে ফেললো প্রকাশ্যে, এর হদিস মিলছে না! প্রাণি সম্পদের হিসাবও কি সঠিক? মনে পড়লো আমার গ্রামের বাড়ীর একজনের কথা। গ্রামের বাজারে পত্রিকা পড়তো আর ব্যাখ্যা করতো সবাই স্টলে বসে ভীর করে শুনতো।
দেশ স্বাধীনের পরের সময়। আব্দুল লতিফ ছিলো তার। সবাই কালা লতিফ নামেই চিনতো। স্থানীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। আমার গ্রামেই বাস কিন্তু বেশি সময় কাটাতো আমাদের বাড়িতে। একদিন বাজারের স্টলে সবার সামনে সম বয়সী আব্দুল আজিজ বললেন, লতিফ পৃথীবীর নাকি তিন ভাগ জল আর এক ভাগ স্থল। বইয়ে লেখা আছে। তৎক্ষনাত উনার উত্তর,‘রাখ তোমার বইয়ে লেখা। বইয়ে সাগর, নদী, বড় খালের হিসেব করে লিখেছে। আমার বাড়ীর পুকুর, তোমার বাড়ির জলা এসব কি হিসেবে নিয়েছে? নেয়নি। নিলে আরও বেশী হতো।’ সবাই চুপ, তারপর বললো লতিফতো ঠিকই ধরেছে। প্রাণি সম্পদ বিভাগের হিসেবটা সেই বইয়ে লেখা হিসেবের মতোই। নিজের একটি গরু সেটাই কোরবানি হয়েছে। এমন অসংখ্য আছে। সে গুলো হিসেবে আনা হয়নি। মাঠ কর্মীরা ঘড়ে বসে খামারীর হিসেব দিয়েছে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]