আমাদের রাজনৈতিক ইতিহাসের একটি অধ্যায়ের অবসান

আমাদের নতুন সময় : 25/08/2019

পীর হাবিবুর রহমান

আমাদের রাজনৈতিক ইতিহাসের একটি অধ্যায়ের অবসান ঘটিয়ে আরেকটি উজ্জ্বল নক্ষত্রের বিদায়। এদেশের রাজনীতির কিংবদন্তি,বাম রাজনীতির এককালের প্রবাদ পুরুষ, কুঁড়েঘরের ন্যাপ সভাপতি অধ্যাপক মোজাফ্ফর আহমেদ অবশেষে চলে গেলেন। মুজিবনগর সরকারের উপদেষ্টা আজীবন সংগ্রামী মানবতার রাজনীতির জননেতা মোজাফফর আহমদের বয়স প্রায় শতকের কাছে এসেছিলো। আমার সঙ্গে এই বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের মানুষটির যোগাযোগ ঘনিষ্ঠতা ছিলো। ভীষণ ¯েœহ করতেন। কৌতুকপ্রিয় স্বভাবসুলভ কথাবার্তায় মুগ্ধ করতেন। সর্বশেষ ডেকে নিলেন যেদিন সেদিন সাদা কাগজে নিজের সই করে দিলেন। বললেন, ‘ভাসানী আমাকে এভাবে সই করে দিয়ে বলেছিলেন, তোমার কথাই আমার কথা। তোমার মনে যা চায় লিখে দাও। আমি তার নামে বিবৃতি লিখে দিতাম’। তিনি আমাকে বললেন, ‘পীর হাবিবুর রহমান, তোমার কথাই আমার কথা, যাও লিখে দাও তোমার মন যা চায়’। আমি অবাক বিস্মিত! এতো বড় একজন নেতা, এ কি বলছেন? এমন আস্থা। জানতাম তিনি চলে যাবেন, তবু তার চলে যাওয়ার সংবাদে মনটা কেঁদে উঠলো। আদর্শিক রাজনীতির এক বটবৃক্ষ ইতিহাসে আলোর পথ দেখিয়ে বিদায় নিলেন। বঙ্গবন্ধুর বন্ধু মোজাফফর আহমদের সমবয়সী নেতারা অনেক আগেই চলে গেছেন। তাকে স্বাধীনতা পদক দেয়া হয়েছিলো, নির্লোভ ত্যাগী বর্ষীয়ান নেতাটি তা নেননি। বললেন, দেশের স্বাধীনতা ও মানুষের মুক্তির জন্য কাজ করেছেন প্রাপ্তির আশায় নয়। অথচ কতোজন চতুরতায়, কেউবা ভিখেরির মতো চেয়ে, কেউবা ক্ষমতা ও কমিটিতে থাকার সুবাদে এ পদক নিয়ে কি বিগলিত হাসি হেসেছেন।
এদেশের রাজনৈতিক সংগ্রাম, মানবকল্যাণ, গণতন্ত্রের সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তাকে অমরত্ব দেবে। আমার মতো মানুষ তার দেশপ্রেম, মানবপ্রেম,নির্লোভ আদর্শিক আত্মমর্যাদাবোধ ও নিরলস সংগ্রামের প্রতি নত থাকবে শ্রদ্ধায়, ভালোবাসায়। রাজনীতির পবিত্র এ মানুষটিকে আল্লাহ জান্নাতবাসী করুন। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]