এগিয়ে চলেছে মেট্রোরেলের কাজ, প্রত্যেকটি ট্রেনে থাকবে ছয়টি কোচ

আমাদের নতুন সময় : 25/08/2019

শাহীন খন্দকার : ঢাকাবাসীর স্বপ্নের মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ২০১২ সালের জুলাই মাসে। দেখতে দেখতে গড়িয়েছে অনেকটা সময়। তবে প্রকল্পের অগ্রগতি মোটেও আশানুরূপ নয়। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত উড়ালপথ ও স্টেশন নির্মাণের কাজ শেষ হওয়ার কথা ২০১৯ সালের জুনে। তবে সে অবস্থান থেকে সরে এসেছে সরকার। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে ২০২১ সালের বিজয় দিবসে বাংলাদেশের প্রথম মেট্রোরেলের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পরিকল্পনা রয়েছে।
ওই বছরের ১৬ ডিসেম্বরই উত্তরা তৃতীয় পর্ব থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০ দশমিক ১০ কিলোমিটার উড়াল রুট খুলে দেয়া হবে বলে জানিয়েছে মেট্রোরেল প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী সংস্থা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)। সব মিলিয়ে চলতি বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত প্রকল্পের মোট অগ্রগতি হয়েছে ৩৪ দশমিক ৫৮ শতাংশ। প্রকল্পের মোট ব্যায় ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকার মধ্যে জাপান সরকারের উন্নয়ন সংস্থা জাইকা ঋণ দিচ্ছে ১৬ হাজার ৫শত ৯৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। এ পর্যন্ত ব্যায় হয়েছে মাত্র ৭ হাজার ৬শত ৪ কোটি টাকা।
দীর্ঘ ছয় মাস পর প্রকল্পের ধীরগতি তদন্তে মাঠে নেমেছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মুল্যায়ন বিভাগ(আইএমইডি)টিম।চলতি বছরের গতকাল ২৪ আগস্ট আইমইডির মহাপরিচালক (অতিরিক্ত) মো. কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে মেট্রোরেল প্রকল্প এলাকা সরেজমিনে পরিদর্শন করা হবে। আইমএমইডি সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রকল্পের অগ্রগতি বৃদ্ধি ও পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ হচ্ছে কি-না দেখতেই মাঠে নামছে আইমইডি। প্রকল্প এলাকায় সাধারণ মানুষের ভোগান্তি হচ্ছে কি-না, তাও খতিয়ে দেখা হবে। মেট্রোরেল প্রকল্প প্রতি তিন মাস পর পর পরিদর্শন করার কথা আইএমইডির। কিন্তু, দীর্ঘ ছয় মাস পর পরিদর্শনে যাচ্ছে তারা। সবশেষ চলতি বছরের মার্চে মেট্রোরেল প্রকল্প পরিদর্শন করেছিল আইএমইডি।
এ প্রসঙ্গে আইএমইডির এক কর্মকর্তা বলেন, নানা কারণে মেট্রোরেল প্রকল্প পরিদর্শন করা হয়নি। এটা আগের মহাপরিচালক (ড. মো. মশিউর রহমান) ভালো বলতে পারবেন। তবে নতুন মহাপরিচালক (মো. কামরুজ্জামান) তিন মাস পর পর প্রকল্প পরিদর্শন করবেন। জানা যায়, চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত মেট্রোরেলের সার্বিক গড় অগ্রগতি ২৪ দশমিক ৬৯ শতাংশ। প্রথম পর্যায়ে নির্মাণের জন্য নির্ধারিত উত্তরা তৃতীয় পর্ব থেকে আগারগাঁও অংশের অগ্রগতি ৪০ দশমিক ৫৮ শতাংশ।
রাজধানীর যানজট নিরসন, নগরবাসীর যাতায়াত আরামদায়ক, দ্রুততর ও নির্বিঘœ করতে ২০১২ সালে গৃহীত হয় মেট্রোরেল প্রকল্প। উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল পর্যন্ত এ প্রকল্পের দৈর্ঘ্য হবে ২০ দশমিক ১০ কিলোমিটার। এ এলাকায় বসবাসকারী লাখো মানুষ মেট্রোরেল ব্যবহার করে গন্তব্যে যাতায়াত করতে পারবেন । প্রকল্পে মোট ২৪ সেট ট্রেন চলাচল করবে। প্রত্যেকটি ট্রেনে থাকবে ছয়টি করে কোচ।
মেট্রোরেলের ১৬টি স্টেশন হবে উত্তরা (উত্তর), উত্তরা (সেন্টার), উত্তরা (দক্ষিণ), পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া, তালতলা, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, সোনারগাঁও, জাতীয় জাদুঘর, দোয়েল চত্বর, জাতীয় স্টেডিয়াম ও বাংলাদেশ ব্যাংক। রাস্তার মাঝ বরাবর উড়ালপথে চলবে মেট্রোরেল। স্টেশন হবে প্রায় দোতলা সমান উঁচু আর দৈর্ঘ্য একশত ৮০ মিটার। স্টেশনের নিচতলায় থাকবে টিকিট বিক্রয়কেন্দ্র ও স্বয়ংক্রিয় প্রবেশদ্বার। দু’পাশ থেকে যাত্রীরা আসা-যাওয়া করতে পারবে এ স্টেশনে।সম্পাদনা : সমর চক্রবর্তী




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]