• প্রচ্ছদ » » রোহিঙ্গা প্রশ্নে আমরা আবেগকে বড় করে তুলেছিলাম?


রোহিঙ্গা প্রশ্নে আমরা আবেগকে বড় করে তুলেছিলাম?

আমাদের নতুন সময় : 25/08/2019

সওগাত আলী সাগর : রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে সরকারের অবস্থানের যে পরিবর্তন ঘটেছে পররাষ্ট্রমন্ত্রী তা পরিষ্কার করে দিয়েছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, রোহিঙ্গাদের আর বসিয়ে বসিয়ে খাওয়াতে পারবো না। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই বক্তব্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গত বছরের বক্তৃতা-বিবৃতির সম্পূর্ণ বিপরীত। গত বছরের অক্টোবর মাসেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরেছেন, ‘আমরা যদি ১৬ কোটি মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করতে পারি তাহলে আরও অতিরিক্ত পাঁচ থেকে সাত লাখ নির্যাতিত মানুষের খাওয়ানোর ব্যবস্থাও আমরা করতে পারবো।’ তিনি আরও বলেছিলেন, ‘যদি প্রয়োজন হয়, আমরা দিনে একবেলা খাবো এবং অন্য বেলার খাবার অসহায় রোহিঙ্গাদের দেবো। আমরা ধনী নই, কিন্তু আমাদের মন বড়। আমরা অসহায় মানুষের পাশে রয়েছি’। বাংলাদেশে তো বটেই আন্তর্জাতিক ফোরামেও প্রধানমন্ত্রী এই বক্তব্য দিয়েছেন। হঠাৎ করেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী বসিয়ে বসিয়ে খাওয়ার প্রশ্ন তুললেন কেন? এটি কি শেখ হাসিনার ঘোষণার বিরুদ্ধে অবস্থান নয়? এটা সত্য, প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতায় ক‚টনীতির চেয়েও আবেগ বেশি ছিলো, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তৃতায়ও আবেগই দৃশ্যমান। কিন্তু রাষ্ট্র, ক‚টনীতিতে আবেগ মূল্যহীন, কখনো কখনো অযোগ্যতা হিসেবেও বিবেচিত হয়। রোহিঙ্গাদের প্রশ্নে আমরা আবেগকে বড় করে তুলেছিলাম, ‘সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানের বাংলাদেশে’ ‘রোহিঙ্গা মুসলিম’ ভাইদের জন্য অনুভ‚তিকে টোকা দেয়াকেই গুরুত্বপূর্ণ মনে করেছিলাম, ফলে ক‚টনৈতিকভাবে আমরা তেমনভাবে অগ্রসর হতে পারিনি। বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গাদের প্রশ্নে আমরা কি আমাদের অতি আপনজন, নিকটতম বন্ধু ভারত, চীনকে উদ্বিগ্ন করতে পেরেছি। তাদের কি আমাদের পাশে নিয়ে আসতে পেরেছিলাম। কোনো একটি দেশ কি শক্তভাবে আমাদের হয়ে বলেছে… রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে হবে। আমরা নিজেরাই কি তেমন জোরালোভাবে বলেছি। নাকি আমরা ‘আমরা দিনে একবেলা খাবো এবং অন্য বেলার খাবার অসহায় রোহিঙ্গাদের দেবো’… এমন মানবিক বক্তব্যে অনুপ্রাণিত হয়ে ‘মুসলিম ব্রাদারহুডের’ কল্যাণ কামনায় উদ্বেলিত থেকেছি। আবারো বলি, রোহিঙ্গাদের আর বসিয়ে বসিয়ে খাওয়াতে পারবো না’… এটা ক‚টনীতির ভাষা নয়, এটা রাজনীতির মাঠের বক্তৃতার ভাষা। আপনি যাদের আশ্রয় দিয়েছেন… তাদের খাবার নিশ্চিত করাটা আপনার কর্তব্যের মধ্যেই পড়ে। আপনি বসিয়ে বসিয়ে খাওয়াবেন, নাকি দাঁড় করিয়ে রেখে খাওয়াবেন, সেটা আপনার দক্ষতার উপর নির্ভর করে। রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে আমরা কখনোই ক‚টনীতি করতে পেরেছি বলে মনে হয় না, আমরা বরাবরই এদের নিয়ে রাজনীতি করেছি। এখন অন্তত রাজনীতি বন্ধ করে ক‚টনীতির দিকে নজর দেয়া দরকার। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]