কাশ্মীর নিয়ে ভারত-পাকিস্তান যখন উত্তপ্ত তখন ফের ঝড় তুললো ‘দ্য স্পাই ক্রনিকলস

আমাদের নতুন সময় : 05/09/2019


দেবদুলাল মুন্না : কাশ্মীর নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যখন উত্তপ্ত অবস্থা তখন গতকাল বুধবার বিজেপির মহারাষ্ট্রের নেতা গুরুদয়াল দীক্ষিত দলের এক বৈঠকে একটি বই বাজেয়াপ্তের প্রস্তাব রাখলেন। ভারত ও পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা, যথাক্রমে ‘র’ এবং ‘আইএসআই’-এর দুই সাবেক প্রধান একসঙ্গে মিলে একটি বই লেখেছিলেন ২০১৮ সালে। এ নিয়ে শুরু হলো নতুন বিতর্ক। বইটির নাম, ‘দ্য স্পাই ক্রনিকলস’। গুরুদয়াল দীক্ষিত ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের কাছে অনুরোধ করেছেন দেশের গোয়েন্দা সংস্থার কারো সাথে পাকিস্তানী গোয়েন্দা সংস্থার কারো এমন নতুন সম্পর্ক আছে কি না সে ব্যাপারেও খতিয়ে দেখতে। ‘দ্য স্পাই ক্রনিকলস’বইতে কিছু গোপন তথ্য ফাঁস করা হয়েছে বলে বইটি প্রকাশের পরই বিতর্কের সূত্রপাত।
এ নিয়ে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী ইতিমধ্যেই বইটির অন্যতম লেখক জেনারেল আসাদ দুরানির বিরুদ্ধে তদন্ত করেছে ও তার বিদেশে যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। বইটির আর এক লেখক, র- এর সাবেক প্রধান এ এস দুলাত গতবছর বিবিসকে জানিয়েছিলেন, তারা দুজনেই অনেক বছর আগে অবসর নিয়েছেন – তাই বইটিতে সাম্প্রতিক কোনও গোয়েন্দা তথ্য ফাঁস করার প্রশ্নও নেই। তবে তার পরও অ্যাবোটাবাদে ওসামা বিন লাদেনের বিরুদ্ধে অভিযান থেকে শুরু করে পোখরানে পরমাণু বিস্ফোরণ – এরকম বহু বিষয়ে এই বইয়ের বক্তব্য নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানে তুমুল আলোচনা হয়েছে। বইটিতে জেনারেল দুরানি লিখেছেন ‘সম্ভবত’ পাকিস্তানি গোয়েন্দারাই বিন লাদেনকে আমেরিকার হাতে তুলে দিয়েছিল – যা পাকিস্তানের সরকারি অবস্থানের ঠিক উল্টো। ভারতের পোখরান পরমাণু বিস্ফোরণের নির্দিষ্ট খবর পাকিস্তানের কাছে ছিল না বলেও তিনি বইটিতে স্বীকার করেছেন।
অন্যদিকে ভারতে সহ-লেখক এ এস দুলাত দাবি করছেন এই বইতে গোয়েন্দা তথ্য ফাঁস করার অভিযোগটাই আসলে ভিত্তিহীন। তার কথায়, ‘গোয়েন্দা সংস্থা থেকে আমি অবসর নিয়েছি আঠারো বছর আগে, ফলে আমাকে বলতে পারেন গোয়েন্দার ফসিল। জেনারেল দুরানি তো আইএসআই প্রধান ছিলেন ছাব্বিশ বছর আগে। ফলে আমরা আবার কী ফাঁস করব? আমরা আড়াই বছর ধরে, তিরিশ ঘণ্টা কথাবার্তা বলে এই বইটার কাঠামো দাঁড় করিয়েছি, এই পর্যন্ত।’ ভারতের সিনিয়র সাংবাদিক ও বিশ্লেষক মায়া মিরচন্দানি এ বিষয়ে জি নিউজকে বলেন, ‘কাশ্মীরের এখন যা পরিস্থিতি, সেই টাইমিংটাও তাতে ইন্ধন জোগাচ্ছে । আর অনেকেই মনে করছেন দুই সাবেক গোয়েন্দা হয়তো কিছু গোপন সরকারি তথ্যও ফাঁস করেছেন। আসলে বইতে বর্তমান পরিস্থিতিকে হুমকিতে ফেলার মতো কিছুই নেই। দুজনের আলাপচারিতা মাত্র।’ সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]