রোহিঙ্গাদের হাতে ভারী অস্ত্র উৎস জানে না পুলিশ

আমাদের নতুন সময় : 07/09/2019


ইসমাঈল ইমু : কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রায়ই অস্ত্রের ঝনঝনানির কথা শোনা গেলেও এখনো কোনো ভারী অস্ত্র উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। এসব অস্ত্রের উৎসও জানে না পুলিশ ও প্রশাসন। ক্যাম্পগুলোতে আভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে প্রায়ই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা। সন্ত্রাসী গ্রুপের সদস্যরা নিজেদের অবস্থান জানান দিতে আগ্নেয়াস্ত্রসহ নিজেদের ছবি প্রকাশ করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এতে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে স্থানীয়দের মাঝে।
এদিকে, গত বৃহস্পতিবার এনজিও সংস্থা শেড অফিস এবং গুদামে অভিযান চালিয়ে দা, বেলচা, হাতুড়ি, কোদাল ও লাঠি উদ্ধারের পর তা রাতেই ফেরত দিয়েছে প্রশাসন। কিন্তু ক্যাম্পের ভেতরে থাকা সন্ত্রাসীদের অস্ত্র কারা দিচ্ছে কোত্থেকে আসছে তাও জানাতে পারেনি। তবে ক্যাম্পের নিরাপত্তায় সার্বক্ষণিক নজরদারি অব্যাহত রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।
কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্পের মুখপাত্র ইউনুস আরমান বলেন, সন্ত্রাসীরা ছোট ছোট গ্রুপে বিভক্ত হয়ে বিভিন্ন অপরাধে জড়াচ্ছে। প্রতি রাতেই ক্যাম্পে গোলাগুলি, হত্যাকা- হচ্ছে। রোহিঙ্গা ডাকাত হাকিমের অনুসারীরা উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিজেদের গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করছে। এছাড়াও রয়েছে আলেকিনের নেতৃত্বে আরেকটি গ্রুপ। ইউনুস আরমানের দাবি, সর্বশেষ যারা এসেছে, তাদের সঙ্গেই সন্ত্রাসীরা ক্যাম্পে ঢুকে পড়েছে। যারা আগে থেকেই রেজিস্টার্ড ক্যাম্পে আছে, তারা এর সঙ্গে জড়িত নয়।
কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, রোহিঙ্গারা আশ্রয় নেওয়ার পর অবস্থান যতটা নীরব ছিল, এখন তেমনটি নেই। আগে তাদের চাহিদা ছিল খাদ্য এবং চিকিৎসার ওপর। এখন রেশনের খাবার খেয়ে আলস্যতার কারণে প্রতিনিয়ত তাদের মাথায় দুষ্টবুদ্ধি কাজ করে। তাছাড়া ক্যাম্পগুলোতে অর্ধেকেরও বেশি যুবক। ফলে অপরাধ প্রবণতা বাড়ার কারণে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি আগের চেয়ে সংখ্যাগত দিক দিয়ে একটু খারাপের দিকেই যাচ্ছে। তবে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে ভারী কোনো অস্ত্র উদ্ধার করা যায়নি বলে স্বীকার করেন তিনি।
জানা গেছে, মাদকের চালান দেশে অনুপ্রবেশকালে বিজিবি, পুলিশের সঙ্গে বিভিন্ন সময় বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় গত দুই বছরে উখিয়া-টেকনাফের ৩৩টি ক্যাম্পে ৩২ জন রোহিঙ্গা বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। তার মধ্যে উখিয়ায় ২৪ ও টেকনাফে ৮ জন নিহত হয়।
কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর অধিনায়ক উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অপরাধ দমনে র‌্যাবের প্রতিনিয়ত অভিযান চলছে। পাশাপাশি মাদক পাচারে জড়িত বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়েছে। র‌্যাবের সঙ্গে গুলিবিনিময়ের ঘটনাও ঘটেছে। টহল জোরদার করেছে র‌্যাব। সম্পাদনা: রমাপ্রসাদ বাবু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]