• প্রচ্ছদ » নগর মহানগর » অযোগ্যতার অভিযোগে দিলরুবা খানকে গত পঁচিশ বছর প্লে-ব্যাকে ডাকেননি পরিচালক-প্রযোজকরা!


অযোগ্যতার অভিযোগে দিলরুবা খানকে গত পঁচিশ বছর প্লে-ব্যাকে ডাকেননি পরিচালক-প্রযোজকরা!

আমাদের নতুন সময় : 09/09/2019


লিয়ন মীর : দীর্ঘ পঁচিশ বছরের বিরতির পর চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিলেন ‘পাগল মন’ খ্যাত ফোক গানের তুমুল জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী দিলরুবা খান। সরকারি অনুদানে নির্মিতব্য শিশুতোষ ছবি নিশীথ সূর্য পরিচালিত ‘পায়রার চিঠি’ সিনেমায় ‘জান রে’ শিরোনামে দেহতত্ত্বের একটি গান গেয়ে প্লেব্যাকে ফিরলেন এই গুণী শিল্পী। গানটির কথা ও সুর করেছেন পরিচালক নিশীথ সূর্য নিজেই। দিলরুবা খান বলেন, ‘জান রে’ গানটি বিদায় বেলার গান, মন-প্রাণ ছুঁয়ে যায়। গানটি যেমন সুন্দর তেমনি কঠিন। কোনো ধরনের বাদ্যযন্ত্র ছাড়াই খালি গলায় গাইতে হয়েছে গানটি। রেকর্ড শেষে পরবর্তী সময়ে মিউজিক যুক্ত করেছেন পরিচালক।
গানে কেন এই দীর্ঘ বিরতি? জানতে চাইলে দিলরুবা খান বলেন, আমি গানের মানুষ, গান গেয়ে জীবনধারণ করি। আশির দশকে ‘রেললাইন বহে সমান্তরাল’ গানের মধ্য দিয়ে গান গাইতে শুরু করি, এখনো গাইছি। ভালো গান পেলে আমি কখনো কাউকে ফিরিয়ে দিইনি। সুরকার, গীতিকার, পরিচালক, প্রযোজক আমরা সবাই মিলে একটি পরিবার। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় যেমন একটি ভালো গান তৈরি হয়, তেমনি একটি ভালো চলচ্চিত্র দেখতে পায় দর্শক। কিন্তু গত পঁচিশ বছরে কোনো পরিচালক-প্রযোজক তার ছবিতে আমাকে গান গাইতে ডাকেনি। শুনেছি আমার সুর নাকি কোনো নায়িকার কণ্ঠের সঙ্গে মেলে না। তাই তারা আমাকে ডাকেননি। শুনে খুব কষ্ট এবং অপমানিত হয়েছি। জোর করে তো আর গাওয়া যায় না। গত পঁচিশ বছরে চলচ্চিত্র থেকে যে অপমান আর লাঞ্ছনা পেয়েছি, তাতে নতুন কোনো সিনেমায় গান গাওয়ার ইচ্ছাটাই ভেতর থেকে মরে গেছে। একইসঙ্গে মনের মধ্যে একটা ভয় ঢুকে গেছে যে, আমি বোধহয় গাইতে জানি না! পরিচালক নিশীথ সূর্য আমাকে যখন তার ছবিতে গাইতে বলে তখন আমি নিজের অযোগ্যতার কথা ভেবেই না বলেছিলাম, কিন্তু নিশীথ সূর্য আমাকে যে সম্মান আর ভালোবাসা দিয়েছেন, তাতে আবার নতুন করে মনের জোর ফিরে পেয়েছি। নিশীথ সূর্য ডাকলে আবার গাইবো। তবে অন্য কোনো পরিচালকের ছবিতে গান করার ইচ্ছা নেই। পরিচালক নিশীথ সূর্য বলেন, নব্বইয়ের দশকে শিল্পী দিলরুবা খানের গান শুনে বড় হয়েছি। ‘পাগল মন’ ‘ভ্রমর কইয়ো গিয়া’ ‘রেল লাইন বয়ে সমান্তরাল’ মনছুঁয়ে যাওয়া জনপ্রিয় এই গানগুলো বাংলাদেশের এমন কোনো মানুষ নেই যে, সে শোনেনি। মায়ামাখা তার এই গানগুলো চিরদিন বেঁচে থাকবে। গ্রাম থেকে শহর সর্বত্র দিলরুবা খানের সমান জনপ্রিয়তা। আমাদের পরিচালকরা দিলরুবা খানকে ধারণ করতে পারে না বলেই গত পঁচিশ বছর তাকে দিয়ে চলচ্চিত্রে গান গাওয়াতে পারেনি। এটা তাদের সীমাবদ্ধতা ও বর্থ্যতা।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]