• প্রচ্ছদ » সাবলিড » এরশাদের ক্ষমতা দখলে সমর্থন দিয়ে খালেদা জিয়া টাকা ও বাড়ি নিয়েছেন, বললেন তথ্যমন্ত্রী


এরশাদের ক্ষমতা দখলে সমর্থন দিয়ে খালেদা জিয়া টাকা ও বাড়ি নিয়েছেন, বললেন তথ্যমন্ত্রী

আমাদের নতুন সময় : 10/09/2019


সমীরণ রায় : তথ্যমন্ত্রী ও ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ১৯৮২ সালে এরশাদ ক্ষমতা দখলের পর দেখেছি, বিএনপি চেয়াপারসন বেগম খালেদা জিয়া তার কাছ থেকে দুটি বাড়ি ও ১০ লাখ টাকা নিয়েছিলেন।
গতকাল সোমবার সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্্যাপন প্রস্তুতি কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়ার যদি সহযোগিতা না থাকতো এবং তিনি যদি মেনে না নিতেন, তাহলে ওই সরকারের কাছ থেকে বাড়ি ও টাকা নিলেন কেন? এতেই প্রমাণ করে এরশাদের ক্ষমতা দখলে খালেদা জিয়ার সমর্থন ছিলো। এ কথাগুলোই প্রধানমন্ত্রী রোববার সংসদে বলেছেন। এই অপ্রিয় সত্য কথাটি সংসদে বলার কারণে মির্জা ফখরুল সাহেবদের গাঁ জ্বালা করছে।
বিএনপি মহাসচিবের কঠোর সমালোচনা করে তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মহিলা দলের সমাবেশে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে সমালোচনা করেছেন, যা রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত। তিনি যেভাবে ক্রমাগত মিথ্যা কথা বলেন, তাতে নিজের রেকর্ড প্রতিনিয়ত ভঙ্গ করছেন। তিনি এতো বেশি মিথ্যা বলেন, এজন্য অনেকে ব্যঙ্গ করে তাকে মিথ্যা ফখরুল বলেন।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপির নেতৃত্বকে অনুরোধ করবো খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে যেভাবে অপরাজনীতি করছেন, এতে তাকে খাটো করা হচ্ছে।
তিনি বলেন, রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী পরিবারকে মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। বঙ্গবন্ধু খুনিদের আশ্রয় প্রশ্রয়ই নয়, রাজনৈতিকভাবেও প্রতিষ্ঠা করেছে জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়া। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচার না হওয়ার জন্য ইনডেমনিটি বিল সংসদে পাশ করেছিলেন জিয়াউর রহমান। আর খালেদা জিয়া একধাপ এগিয়ে বঙ্গবন্ধুর একজন খুনিকে ১৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনের পর বিরোধী দলীয় নেতা বানিয়ে তার গাড়িতে জাতীয় পতাকা তুলে দিয়েছিলেন। সুতরাং বঙ্গবন্ধুর খুনি পরিবারকে মনোনয়ন দেওয়ায় আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। এটা তাদের রাজনৈতিক ধারাবাহিকতার অংশ। এটা দেশের রাজনীতির জন্য অশুভ লক্ষণ। সম্পাদনা : ওমর ফারুক, আবদুল অদুদ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]