শিগগির শুরু হচ্ছে না পিপলস লিজিংয়ের শেয়ার লেনদেন

আমাদের নতুন সময় : 12/09/2019

অডিট ফার্ম একনাবিনের হিসাবের অপেক্ষায় অবসায়ক
মেরাজ মেভিজ : পুঁজিবাজারে পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডের শেয়ারে বিনিয়োগকারীদের ভয়ের কিছু নেই। তবে এ জন্য আমানতকারীদের মতো অপেক্ষা করতে হবে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার মালিকদেরও। প্রক্রিয়াধীন অবস্থায় থাকা অবসায়ন প্রক্রিয়ায়, আদালতের নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত শেয়ার বাজারে পিপলস লিজিংয়ের লেনদেন শুরু হবার কোন সম্ভাবনা নেই। সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্রের সঙ্গে কথপোকথনে উঠে এসেছে এমন তথ্য।
এদিকে আগামীকাল থেকে পিপলস লিজিয়ের শেয়ার লেনদেন শুরু হবার কথা থাকলেও তৃতীয়বারের মতো তা পিছিয়ে দেয়ার আদেশ জারি করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। গতকাল কোম্পানিটিকে এ দফায় আরো ১৫ দিন শেয়ার লেনদেন বন্ধ রাখার আদেশ দেয়া হয়েছে।
তবে স্বল্প সময়ের জন্য এ নির্দেশনা এলেও নির্দিষ্ট তারিখে ফের লেনদেন প্রক্রিয়া পিছিয়ে দেয়া হবে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। ডিএসই’র এমন বার্তা নিয়ে জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে পিপলস লিজিংয়ের অবসায়ক (লিকুইডেটর) দায়িত্ব পাওয়া বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগের উপমহাব্যবস্থাপক আসাদুজ্জামান খান এ প্রতিবেদককে বলেন, ডিএসই আমাদের কাছে এ ব্যাপারে সুর্দিষ্ট কোন দিকনির্দেশনা চায়নি। তবে যেহেতু পুরো বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন অবস্থায় রয়েছে তাই আমার মনে হয় আদালতের নির্দেশনার পরই শেয়ার লেনদেন চালু হতে পারে।
ডিএসই সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে পিপলস লিজিংয়ের অবসায়ন সংক্রান্ত চিঠি পাওয়ার পর গত ১৪ জুলাই থেকে ১২ আগস্ট পর্যন্ত পিপলস লিজিংয়ের সব ধরনের শেয়ার লেনদেন বন্ধের ঘোষণা দেয় ডিএসই। এরপর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ৯৩২তম বোর্ড সভায় সেই স্থগিতাদেশই বর্ধিত করে গত ১৩ আগস্ট থেকে ২৭ আগস্ট করা হয়। এরপর আবারও দ্বিতীয় দফায় ২৮ আগস্ট থেকে ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আরো ১৫ দিন লেনদেন বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয় ডিএসই। কিন্তু এখন পর্যন্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে এ সংক্রান্ত নতুন কোন নির্দেশনা না আসায় শেয়ার বাজারে পিপলসের লেনদেন ফের ১৫ দিনের জন্য বন্ধের আদেশ জারি করা হয়।
তবে সেটা কবে নাগাদ শুরু হবে এ সম্পর্কে কোন ধারণা করতেও নারাজ লিকুইডেটর। আসাদুজ্জামান খানের ভাষ্য, আসলে বিভিন্ন প্রক্রিয়া নিয়ে কাজ চলছে। সম্প্রতি দায় দেনার হিসাবের জন্য একটি অডিট ফার্মকে (একনাবিন) দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এটা হাতে আসতে আরও কয়েক সপ্তাহ লাগতে পারে। এরপর আমরা পুরো বিষয়টি আদালতে জানাব। আদালত চাইলে অবসায়ন হবে। সে হিসাবে আমানতকারী ও শেয়ার বাজারে এ প্রতিষ্ঠানটিতে বিনিয়োগকারীদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
প্রসঙ্গত, অবসায়নের সিদ্ধান্ত আসার পর থেকেই বিনিয়োগকারীরা শেয়ার বিক্রি করে দ্রুত বেরিয়ে যেতে চাইলে কমতে থাকে পিপলসের শেয়ারের দাম। কোম্পানিটির ১০ টাকা ফেসভ্যালুর শেয়ার সবশেষ লেনদেন হয় ৩ টাকারও কম দরে। এরপরই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশে এর লেনদেন বন্ধ করে দেয় ডিএসই। সম্পাদনা : রেজাউল আহসান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]