রাব্বানীর জিএস পদে থাকার অধিকার নেই, বললেন ডাকসু ভিপি

আমাদের নতুন সময় : 16/09/2019

আসিফ কাজল : দুর্নীতি ও চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অভিযোগে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ হারিয়েছেন গোলাম রাব্বানী। এ ঘটনার পর ছাত্রলীগ নেতাদের নৈতিক স্খলনের বিষয়টি সামনে এসেছে। প্রশ্ন উঠেছে- যিনি ছাত্রলীগের পদ যিনি হারিয়েছেন, ডাকসু সাধারণ সম্পাদকের পদে থাকাটা তার জন্য কতোটা যৌক্তিক।
এ বিষয়ে ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তিনি ছাত্রলীগের পদ হারিয়েছেন। আমি মনে করি নৈতিকভাবে তার আর এ পদে থাকার অধিকার নেই। নৈতিক স্খলনের দায়ে ডাকসুর গঠনতন্ত্রে স্পষ্ট কোনো নির্দেশনা নেই এরপর পৃষ্ঠা ২, সারি
(প্রথম পৃষ্ঠার পর) বলেও জানান তিনি।
এদিকে, ভিপি নুর এক চিঠিতে ডাকসুতে নির্বাচিত আট প্রতিনিধিকে অপসারণের দাবি জানিয়েছেন। অভিযুক্ত ৮ প্রতিনিধি হচ্ছেন ডাকসু সদস্য নজরুল ইসলাম, মুহাম্মদ মাহমুদুল হাসান, রাকিবুল হাসান রাকিব, নিপু ইসলাম তন্বী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মো. আরিফ ইবনে আলী, স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী, ক্রীড়া সম্পাদক শাকিল আহমেদ শাকিল ও স্যার এ. এফ. রহমান হলের ভিপি আবদুল আলীম খান।
গঠনতন্ত্রে কারো পদ বাতিল, স্থগিত বা বহিষ্কার ডাকসুর সভাপতি তথা উপাচার্যের বিশেষ ক্ষমতা বলে হয়ে থাকে বলে উল্লেখ রয়েছে। সংবিধানের চার নম্বর পৃষ্ঠায় উপাচার্যের ক্ষমতায় উল্লেখ আছে, সংসদের স্বার্থে সভাপতি চাইলেই যে কোনো সময় যে কোনো কার্যনির্বাহী সদস্য বা অফিস কর্মচারীকে বহিষ্কার কিংবা পদচ্যুতি করতে পারবেন। তিনি চাইলে, পুরো কার্যনির্বাহী সংসদ ভেঙে দিয়ে নতুন নির্বাচনের ঘোষণা দিতে পারেন।
ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক জাহিদ সুজন বলেন, যিনি চাঁদাবাজির অভিযোগ ও নৈতিক স্খলনের দায়ে অভিযুক্ত, এমন একজন নেতা কী করে ডাকসুর জিএস পদে থাকতে পারে? তার স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করা উচিত। আমরা ইতোমধ্যে গোলাম রাব্বানীকে ডাকসু থেকে বহিষ্কারের দাবিতে মিছিল ও সমাবেশ করেছি।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বলেন, ডাকসুর সভাপতির উচিত তার বিশেষ ক্ষমতাবলে রাব্বানীর জিএসের পদ বাতিল করা। তবে এ বিষয়ে স্পষ্ট কিছু না থাকায় বিষয়টি নিয়ে তেমন কিছু বলা যাচ্ছে না।
ডাকসুর সভাপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, এটা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক বিষয়। এখানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কিছু করার নেই। শিক্ষার্থীদের যদি কোনো অভিযোগ থাকে, তাহলে আমাদের কাছে লিখিতভাবে জমা দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। আমরা বিষয়টি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবো। সম্পাদনা : রমাপ্রসাদ বাবু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]