শোভন-রাব্বানীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ায় খুশি মির্জা ফখরুল

আমাদের নতুন সময় : 16/09/2019

শিমুল মাহমুদ : গতকাল রোববার বিকালে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, একটা সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে আওয়ামী লীগের সভাপতি ,দেশের প্রধানমন্ত্রীকে বহিষ্কার করতে হয়েছে। এটাতো সারাদেশেই চলছে। এতে প্রমাণ করে যে দুর্নীতি কোথায় গিয়ে পৌঁছেছে। তিনি বলেন, একেকটি সংগঠনের গঠনতন্ত্র আছে। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র সম্পর্কে যতটুকু জানি তাদের সংগঠনের নেত্রী হলেন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী। তিনি সাংগঠনিক অভিভাবক। সুতরাং এখানে বহিষ্কারের কি বিধান আছে সেটা আমার জানা নেই। তবে সাংগঠনিক নেত্রী হিসেবে তিনি ব্যবস্থা নিতে পারেন। পদত্যাগ করতে বলেছেন, তারা পদত্যাগ করেছেন এখানে জটিলতার কিছু নেই।
ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধের বিষয়ে অপর এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, আইন দিয়ে রাজনীতি হয় না। আমি আগেও বলেছি, রাজনীতিকে যে আদালত দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা হয় সেখানেই আমাদের আপত্তি। এটা একটা নজিরবিহীন ঘটনা যে একটা রাজনৈতিক দলের রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করছে আদালত। আবার সেটা সরকারই করাচ্ছে। সরকারের উদ্যোগেই হচ্ছে। এতে প্রমাণ করে যে এই সরকার গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। বহুদলীয় গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না, বিরোধীদলেও বিশ্বাস করে না।
তিনি বলেন, গণতন্ত্রের মূল মন্ত্রই হচ্ছে জনগণ আর দেশের জনগণের প্রকৃত প্রতিনিধিত্ব যা একটা সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে নিশ্চিত হয়ে থাকে। যার মাধ্যমে দেশে একটা প্রতিনিধিত্বশীল সরকার গঠিত হয়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে বাংলাদেশে আজ দুটিই অনুপস্থিত। বিএনপি মহাসচিব বলেন, আশির দশক থেকে শুরু করে গণতন্ত্রের অতন্দ্র প্রহরী দেশনেত্রী খালেদা জিয়া যিনি বার বার গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলন করে নিজেকে উৎসর্গ করেছেন তিনি আজ মিথ্যা মামলায় কারাবান্দি। বিশ্ব গণতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এর চেয়ে বড় প্রহসণ আর কি হতে পারে। সম্পাদনা : সমর চক্রবর্তী




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]