‘বিড়াল’ না ‘বেড়াল’?

আমাদের নতুন সময় : 17/09/2019

আবুল কাইয়ুম

আদিতে ই-কার ও উ-কার রয়েছে এমন কিছু পুরনো শব্দের বানানে বহু আগেই ই-কার স্থলে এ-কার এবং উ-কার স্থলে ও-কারের ব্যবহার চালু হয়ে গেছে। দু’প্রকার বানানই শুদ্ধ। তবে পুরনো আমলের সাহিত্যে পুরনো বানান ও সাম্প্রতিককালের সাহিত্যে নতুন বানান দেখা যায়। কিন্তু আমরা অনেকেই অসাবধানতা বা অজ্ঞতার কারণে এ ধরনের শব্দ এখনো পুরনো বানানেই লিখে যাচ্ছি অথবা পুরনো ও নতুনের মিশ্রণে বাক্য রচনা করছি। যেমন এ দুটো বাক্য… ১. ‘বিড়ালটা ভিতর থেকে বেরিয়ে দেয়ালের উপর বসলো।’ ২. ‘বেড়ালটা ভেতর থেকে বেরিয়ে দেয়ালের ওপর বসলো।’ প্রথম বাক্যে আদিতে ই-কার বা উ-কার যুক্ত ‘বিড়াল’, ‘ভিতর’ ও ‘উপর’Ñএ তিনটে শব্দ রয়েছে, এগুলোর বানান পুরনো বা সাধু ধারার। আর এই শব্দগুলোর পরিবর্তিত বা চলতি বানান হলো ‘বেড়াল’, ‘ভেতর’ ও ‘ওপর’। ফেসবুকে এ ধরনের বিচ্যুতি আমরা অনেকেই প্রতিনিয়ত করে থাকি। যেহেতু আমরা আধুনিক যুগের লেখক হতে চাই, সেহেতু আমাদের লেখায় নতুনকেই জায়গা করে দেবো। আর দ্বিতীয় বাক্যটির মতো নতুন ও পুরনোর মিশ্রণও দেবো না। এখন থেকে আমরা লিখব…‘বেড়ালটা ভেতর থেকে বেরিয়ে দেয়ালের ওপর বসলো।’ এ ধরনের আরও কিছু শব্দের ব্যবহার সম্পর্কে আমরা সতর্ক থাকবো। যেমন (বন্ধনীবদ্ধ শব্দগুলো পরিবর্তিত বা চলতি)
আদিতে ই-কারযুক্ত শব্দ : শিয়াল (শেয়াল) ফিরত (ফেরত) পিছন (পেছন), বিয়ান (বেয়ান), সিলাই (সেলাই), শিকড় (শেকড়), শিকল (শেকল), ভিজা (ভেজা), নিকাব (নেকাব), কিতাব (কেতাব), তিপ্পান্ন (তেপ্পান্ন), পিতল (পেতল), সিয়ানা (সেয়ানা), কিচ্ছা (কেচ্ছা), পিয়াজ (পেয়াজ), পিয়াদা (পেয়াদা), বিনামা (বেনামা), ফিরা (ফেরা) পিটানো (পেটানো), শিখা (শেখা), শিখানো (শেখানো), লিখা (লেখা), লিখানো (লেখানো), গিলা (গেলা), গিলানো (গেলানো), ঘিরা (ঘেরা), টিপা (টেপা), টিপানো (টেপানো), ফিরা (ফেরা), ফিরানো (ফেরানো), দিয়াশলাই (দেশলাই), দিব (দেব বা দেবো), নিব (নেব বা নেবো) ইত্যাদি। আদিতে উ-কারযুক্ত শব্দ : কুর্তা (কোর্তা), খুরমা (খোরমা), ধুঁয়া (ধোঁয়া), দুচালা (দোচালা), বুতাম (বোতাম), রুগী (রোগী), ফুলা (ফোলা), মুছা (মোছা), শুনা (শোনা), উড়া (ওড়া), উড়ানো (ওড়ানো), গুছানো (গোছানো), উঠা (ওঠা), ছুটা (ছোটা), ছুটানো (ছোটানো), ঘুরা (ঘোরা), ঘুরানো (ঘোরানো), ঘুচা (ঘোচা), ঘুচানো (ঘোচানো), ডুবা (ডোবা), ডুবানো (ডোবানো), ফুটা (ফোটা), ফুটানো (ফোটানো), বুঝানো (বোঝানো), বুনা (বোনা) ইত্যাদি। এ ধরনের শব্দ খুব বেশি একটা নেই। মনে রেখে চর্চা করলেই সারবে। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]