সামুদ্রিক পাখির প্রাচীন পূর্বপুরুষের ফসিল আবিষ্কার করলেন বিজ্ঞানীরা

আমাদের নতুন সময় : 19/09/2019


নূর মাজিদ : নিউজিল্যান্ডের একদল প্রকৃতিবিজ্ঞানী দেশটির নর্থ ক্যান্টাবেরি রাজ্যের ওয়য়েইপারা অঞ্চলে বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন পাখির ফসিল খুঁজে পেয়েছেন। বিশালাকায় সামুদ্রিক পাখিদের পূর্বপুরুষ ছিলো প্রোটোডোনপ্রিরিক্স রুথ্যা নামের প্রজাতিটি। ডাইনোসরদের কয়েক হাজার বছর পড়ে এই প্রজাতিটিও বিলুপ্ত হয়ে যায়। খবর : দ্য এক্সপে¬ারিস্ট। প্রোটোডোনপ্রিরিক্স আকারে বর্তমান দিনের সামুদ্রিক চিলের আকারের ছিলো। কিন্তু, এর আধুনিক উত্তরপুরুষদের ডানার আয়তন ৫ মিটার বা তার চাইতেও বেশি। এই বংশের অন্যান্য পাখির মতো প্রোটোডোনপ্রিরিক্সের সূচালো ঠোঁট এবং সেই ঠোঁটে ছিলো ধারালো দাঁতের মতো খাঁজ। লেহ লাভ নামের যে বিজ্ঞানী এই ফসিল আবিষ্কার করেন, তার স্ত্রী রূথের নামেই প্রজাতিটির ল্যাটিন ভাষায় বৈজ্ঞানিক নামকরণ করা হয়েছে। ফসিলটি এখন ক্যান্টবেরি জাদুঘরে সংরক্ষণ করা হচ্ছে। এই বিষয়ে জাদুঘরের কিউরেটর ড. পল স্কোফিল্ড বলেন, ‘পাখির হাড়ের বয়স পরীক্ষা করে আমরা নিশ্চিত হয়েছি শুধুমাত্র দক্ষিণ গোলার্ধেই এদের বিচরন ছিলো। এর আগে কখনোই এই প্রজাতির স¤পূর্ণ অবিকৃত জীবাশ্ম পাওয়া যায় নি।’
প্রোটোডোনপ্রিরিক্স যখন বিচরণ করতো তখনকার দিনের নিউজিল্যান্ড ছিলো আজকের তুলনায় স¤পূর্ণ স্বতন্ত্র। দেশটিতে তখন ছিলো উষ্ণমন্ডলীয় চিরসবুজ জলবায়ু। এবং সাগরের তাপমাত্রা ছিলো ২৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস। এমন পরিবেশে নিউজিল্যান্ড সংলগ্ন সাগরে ছিলো বিশাল সব সামুদ্রিক কাছিম। যারা বৈচিত্রময় রঙ্গিন প্রবাল প্রাচীরের বাস্তুসংস্থানের অংশ ছিলো। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]