• প্রচ্ছদ » » পুরুষাঙ্গ দিয়ে চিন্তা করা ‘পুরুষ’ দেখতে দেখতে আমি ক্লান্ত


পুরুষাঙ্গ দিয়ে চিন্তা করা ‘পুরুষ’ দেখতে দেখতে আমি ক্লান্ত

আমাদের নতুন সময় : 20/09/2019

জান্নাতুন নাঈম প্রীতি

অভিনেত্রী মেহজাবিনের ফেক ভিডিও বের হয়েছে, সেখানে মেহজাবিনের মতো দেখতে একটা মেয়ের নগ্ন শরীর দেখা যাচ্ছে। পুরুষাঙ্গ দিয়ে চিন্তা করা পুরুষ দেখতে দেখতে আমি ক্লান্ত। এত্তোগুলো প্রেম করার পর পুরুষের সাইকোলজি আজকাল খানিকটা হলেও বুঝি। আমাদের দেশের বেশিরভাগ পুরুষরা সবচেয়ে হীনমন্যতায় ভোগে জ্ঞানে, বিদ্যায়, বুদ্ধিতে, বিতর্কে ছোট হয়ে যাওয়ার ভয়ে। একজন পুরুষের কাছে ছোট হওয়া তারা আমলে নেন না, কিন্তু একজন নারীর কাছে ছোট হওয়া খুবই লজ্জার। কারণ ছোটকাল থেকেই তাদের শেখানো হয়েছে নারী মানেই শরীর, বিদ্যায়, বুদ্ধিতে, কর্মে, সৃজনে হীন, দীন, ক্ষীণ একটা মানুষ। মুখে যতোই প্রগতিশীল মুক্তমনা হোক, মগজে এসব পুরুষ আশা করেন নারী মাত্রই একটা খেলনা, কলের পুতুলের মতো রান্না করবে, বাসন মাজবে, কাপড় ধোবে এবং তার মনোরঞ্জনের জন্য সাজবে। কাজেই একটা মেয়ের শরীর দেখা গেলেই আহা উঁহু শুরু হয়ে যায়। জীবনে যতো প্রেমিক পেয়েছি তাদের ৯০ শতাংশ এ রকম পুরুষ। সর্বশেষ আমার প্রাক্তন প্রেমিক অভি সবচেয়ে বেশি ভয় পেতো কখনো তার কথা লিখে না ফেলি। লিখে ফেললে তার প্রগতিশীল, মুক্তমনা রূপটি কোথায় থাকবে? কাজেই আমার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিলো… আমাদের অন্তরঙ্গ বিষয় নিয়ে একদম লেখা যাবে না। অবাক হয়ে তাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম… কেন? সে বলেছিলো… কারণ আমি চাইছি না। কেন চাইছো না? কারণ আমার পরিবারের মানুষ এ রকম নয়, তারা এটা নিতে পারবে না। আমি মনে মনে হেসেছিলাম। কারণ একজন লেখকের কাছে সবচেয়ে দামি অক্সিজেনটি হচ্ছে তার লেখা। যে পুরুষ অক্সিজেনটির ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সে কয়েক কোটিবার ‘ভালোবাসি’ বললেও আমি বিশ্বাস করবো না। যে আমার স্বাধীনতা ভালোবাসে না, সে ভালোবাসবে আমাকে? জীবনে প্রথম বিয়ার খেয়েছিলাম মায়ের সামনে, প্রথম সিগারেট আর চুমু খাওয়ার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছিলাম আমার আত্মজীবনী ‘উনিশ বসন্তে’। নিজের চরিত্রের একটা খারাপ কিছুর কথা বলতেও দ্বিধা করিনি বাবা-মাকে। নির্দ্বিধায় বলেছি… আই অ্যাম নট এ ভার্জিন বাট আই অ্যাম ইন্ডিপেন্ডেন্ট। তাই প্রেম ভেঙে দেয়ার পর আমার সবচেয়ে বেশি ইচ্ছে হয়েছে আমার প্রাক্তন প্রেমিকের বাবা-মাকে জানাতে যে আপনারা একজন দারুণ প্লেবয়ের জন্ম দিয়েছেন। মদ, নারী, নেশা এবং পুরুষতান্ত্রিক গোঁয়ার্তুমিতে ভরপুর একজন পুরুষ। পঁয়ত্রিশ বছর ধরে নিজের সন্তানকে চেনেন না, এমন বাবা-মা হওয়ার দুঃখ আমার হৃদয় দিয়ে অনুভব করেছি গত কয়দিন। ঠিক করেছি কখনো যদি মা হই তাহলে চাইবো সন্তানের আকাশ হতে। তাকে বলবো… পৃথিবীতে সত্যের মতো সুন্দর কিছু নেই। তোমার হৃদয় ভেঙে যাক, তুমি নিজের আত্মসম্মান বিকিয়ে দিও না। যে প্রেমিক অন্ধকারে চুমু খায় আর আলোতে এসে কুঁকড়ে যায়, তার জন্য ভালোবাসা রেখো না। যদি সত্যিই মা হই, ছেলে হোক, মেয়ে হোক বা লিঙ্গহীন হোক তবুও আমার সন্তানের নাম হবে… প্রেমিক। এই যুদ্ধক্লান্ত প্রেমহীন পৃথিবীতে যে আর কিছু না জানুক, ভালোবাসতে জানে। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]