চীনের ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ৩০ মিনিটে আঘাত করবে যুক্তরাষ্ট্রে

আমাদের নতুন সময় : 02/10/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : গণচীনের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে তিয়েনআনমেন স্কয়ারকে রীতিমতো অত্যাধুনিক অস্ত্রের গুদাম বানিয়ে ফেলেছিল বেইজিং। এদিনের প্যারেডে প্রদর্শিত হয় চীনের তৈরি নতুন ধরনের অনেক অস্ত্র। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি অতি ভয়ঙ্কর। তবে সেগুলোর মধ্যে ভয়ংকরতম বিবেচনা করা হচ্ছে পারমাণবিক ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ডংফেং-৪১কে। এটিকে বলা হচ্ছে ইতিহাসের অন্যতম ভয়ংকর অস্ত্র। অনেক সামরিক বিশ্লেষক একে পৃথিবী ধ্বংসী অস্ত্র বলেও অভিহিত করছেন। খবর ইন্ডিপেন্ডেন্ট, দ্য সান, জেনস ডিফেন্স ও সিনহুয়ার।
এই গ্রহের শক্তিশালীতম ক্ষেপণাস্ত্রটির রেঞ্জ ৯ হাজার ৩০০ মাইল। পৃথিবীর কোনো আন্ত:মহাদেশীয় ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রই এতোটা দূরত্ব অতিক্রমে সক্ষম নয়। এই অস্ত্রটি প্রতি ঘণ্টায় ৭ হাজার ৬৭২ মাইল গতি তুলতে সক্ষম। এটিও কোনো ক্ষেপণাস্ত্রের জন্য সর্বোচ্চ গতিসীমা। নতুন ক্ষেপণাস্ত্রটি মাত্র ৩০ মিনিটে যুক্তরাষ্ট্রে আঘাত হানতে সক্ষম। এটি একই সময়ে ১০টি পারমাণবিক ওয়ারহেড বহন করতে পারবে, যার প্রতিটির লক্ষবস্তু হবে আলাদা। এই ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে দুটি আলাদা মিসাইল ব্রিগেড গড়ে তুলেছে পিপলস লিবারেশন আর্মি রকেট ফোর্স।
তবে এই প্যারেডে প্রদর্শিত একমাত্র অস্ত্র ডংফেং-৪১ নয়। এই প্যারেডের আরো একটি ভয়ঙ্কর অস্ত্র হলো ডংফেং-১৭। এটি একটি পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম গ্লাইডার। বিদেশি বিশ্লেষকরা বলছেন এটি নকশা করা হয়েছে উচ্চ গতিতে ম্যানুভার করে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে ফাঁকি দেয়ার জন্য।
দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, এই প্যারেডে প্রদর্শিত ৪০ শতাংশ অস্ত্র প্রথমবারের মতো জনসমক্ষে আনা হয়েছে। তবে ডংফেং৪১ এই প্যারেডের একমাত্র আন্ত:মহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র ছিলো না। এদিন প্রদর্শিত হয়েছে ডংফেং-২১জি আন্ত:মহাদেশীয় ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রও। এছাড়াও ছিল ডংফেং ৫বি। এছাড়াও এদিন চীন প্রদর্শন করেছে, ডব্লিউজেড-৮ সুপারসনিক রিকনিসেন্স ড্রোন। বলা হচ্ছে এই নজরদারি ড্রোনটিকে সনাক্ত করা প্রায় অসম্ভব। সম্পাদনা : রমাপ্রসাদ বাবু
০ঝ০০ঝ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]