• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » তিস্তার সুরাহা নেই, বরং ফেনী নদীর পানি নেবে ভারত, ফেসবুকে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া


তিস্তার সুরাহা নেই, বরং ফেনী নদীর পানি নেবে ভারত, ফেসবুকে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া

আমাদের নতুন সময় : 07/10/2019

আশিক রহমান : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে সাতটি সমঝোতা স্মারক সই, তিন প্রকল্প উদ্বোধন হলেও বহুল প্রত্যাশিত তিস্তার বিষয়ে কোনো অগ্রগতি নেই। বরং ফেনী নদী থেকে ১ দশমিক ৮২ কিউসেক পানি নেবে ভারত। এ নিয়ে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে ফেসবুকে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক আলী রীয়াজ নিজের ফেসবুক পোস্টে লেখেন, বাংলাদেশের বহু প্রত্যাশিত তিস্তা চুক্তি হয়নি, অন্য ছয়টি নদীর পানিবন্টন বিষয়ে অগ্রগতি হয়নি; বরঞ্চ ১১ বছর আগের স্বাক্ষরিত ফ্রেমওয়ার্ক নিয়েই আবারও কথা হয়েছে। সহজ ভাষায় এই ধরনের চুক্তির আশু সম্ভাবনা নেইÑ এটাই বোঝা যাচ্ছে। দ্বিতীয়ত ফেনী নদী থেকে ভারত ত্রিপুরার সাবরুম শহরের জন্যে ১ দশমিক ৮২ কিউসেক পানি প্রত্যাহার করবে বলে চুক্তি হয়েছে। বাংলাদেশ পানি পাওয়ার নিশ্চয়তা পায়নি, ভারত পেয়েছে। ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল বলেন, এবারো একই কা-। এবার ফেনীর পানি, চট্টগ্রাম আর মংলা বন্দর ব্যবহারের সুযোগ আর তরল গ্যাসের বিনিময়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর হাতে ঠুনকো এক পদক ধরিয়ে দিয়েছে ভারত। বাংলাদেশের মানুষের সাথে দুদেশের সরকারের নির্মম এসব মশকড়া আর কতোকাল দেখতে হবে আমাদের?
এটিএননিউজের বার্তাপ্রধান প্রভাষ আমিন লিখেছেন, তিস্তা নদীর পানি উস্তার মতো তিতা, তাই বাংলাদেশকে দেয়ার দরকার নাই। ফেনী নদীর পানি মধুর মতো মিঠা, তাই নিয়া আসো। বাংলাভিশনের বাতাপ্রধান মোস্তফা ফিরোজ লেখেন, পানি পাবো তিস্তার, এই আশায় বসে থাকতে থাকতে এখন উল্টো পানি দিতে হবে? ড. তুহিন মালিক বলেন, স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের সমুদ্র বন্দর, ফেনী নদীর পানি এবং জ্বালানি সঙ্কটময় দেশের গ্যাস ভারতের হাতে তুলে দেয়ার যে চুক্তি করা হলো, তা সুস্পষ্টভাবে সংবিধান পরিপন্থী। এটা বাংলাদেশ সংবিধানের ১৪৫ক অনুচ্ছেদের গুরুতর লংঘন। যা সংবিধানের ৭ক অনুচ্ছেদের অধীনে সংবিধান লংঘনজনিত রাষ্ট্রদ্রোহীতার অপরাধের শামিল। সংবিধানের ৭ক অনুচ্ছেদের অধীনে যার শাস্তি মৃত্যুদ-। বাংলাদেশের সংবিধানের ১৪৫ক অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে ‘বিদেশের সাথে সম্পাদিত সকল চুক্তি রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করা হইবে এবং রাষ্ট্রপতি তাহা সংসদে পেশ করিবার ব্যবস্থা করিবেন।’ সাংবাদিক জায়েদুল আহসান পিন্টু লেখেন, তুমি চাইবা আমি দেবো, আমি চাইবো তুমি দেবা না= উইন উইন সিচুয়েশন?




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]