• প্রচ্ছদ » » আবরারের মায়ের এই কান্না আর থামবে না কোনোদিন


আবরারের মায়ের এই কান্না আর থামবে না কোনোদিন

আমাদের নতুন সময় : 09/10/2019

খুজিস্তা নূর-ই-নাহারিন

‘এইচএসসিতে ঢাকা বোর্ডে টপ বিশে ছিলো, নটরডেম কলেজে তার ব্যাচের সেরাদের একজন ছিলো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে চান্স পেয়েছিলো, ঢাকা মেডিকেল কলেজে চান্স পাওয়াসহ বিদেশের একটি নামকরা প্রতিষ্ঠানে নিউক্লিয়ার সায়েন্স ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে পড়ার সুযোগ পেয়েছিলো সে। এগুলোতে ভর্তি না হয়ে সে বুয়েটের টপ সাবজেক্টে ভর্তি হয় পিশাচদের পিটুনিতে মৃত্যবরণ করতে’Ñ আবরারের মায়ের ভাষ্য। শিক্ষা ক্ষেত্রে এখনো পর্যন্ত মধ্যবিত্তের পছন্দের সর্বোচ্চ তালিকায় বুয়েট । চান্স পাওয়া ভীষণ কঠিন। বুয়েটের এক একটি ছাত্রছাত্রী তাদের পিতা-মাতার এক একটি জীবন্ত স্বপ্ন ।
শোনা যাচ্ছে ফেসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে দ্বিমত পোষণ করায় এমন নিষ্ঠুর হত্যাকাÐ। কুড়ি-একুশ বছরের এমন একটি মেধাবী নিরস্ত্র ছেলেকে নৃশংস উন্মত্ততায় পিটিয়ে হত্যার মাঝে কি কৃতিত্ব আছে জানা নেই। আবরার ফাহাদ মুজাহিদকে পিটিয়ে জখম করে প্রাণহীন নিথর দেহটাকে দাম্ভিক অবহেলায় সিঁড়ির নিচে ফেলে রাখা হয়েছে। যারা করেছে তারাও বুয়েটের ছাত্র, কিন্তু মানুষ থেকে তারা যেন পশুতে পরিণত হয়েছে। মৃত আবরারের সব শরীরজুড়ে পৈশাচিক উল্লাসের ছোপ ছোপ নিষ্ঠুর চিহ্ন। রাজনৈতিক মতাদর্শে ভিন্নতা থাকতেই পারে, কিন্তু তাই বলে এমন বীভৎস হত্যাকাÐ কিছুতেই সমর্থন যোগ্য নয়। মেধাবী ছাত্র মানেই ভালো মানুষ নয়। জান্তব ক্রোধে এমন পাশবিক বর্বরতা মেনে নেয়া যায় না কিছুতেই। তারা যেই হোক অবশ্যই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। বিচারবহিভর্‚ত যেকোনো হত্যাকাÐই ঘৃণিত অপরাধ। অপরাধীর কোনো ধর্ম, দল বা দেশ নেই। আবরারের ফেসবুক ইন্ট্রুতে লেখাÑ ‘অনন্ত মহাকালে মোর যাত্রা অসীম মহাকাশের অন্তে’Ñ অসীমের যাত্রায় তুমি শান্তিতে থাকো এই দোয়া কেবলই। আবরার। আবরার। আবরার। আবরার। আবরার। আবরার। আবরারের মায়ের কান্না। এই কান্না আর থামবে না কোনোদিন। এমন নির্মমতায় আর কোনো মায়ের বুক শূন্যতায় হাহাকারে কষ্টে কেঁদে না ফিরুক। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]