সাত দফা বাস্তবায়নের দাবি করলো ভাড়াটিয়া পরিষদ

আমাদের নতুন সময় : 09/10/2019

 

তাপসী রাবেয়া : রাজধানীর ভাড়াটিয়াদের আয়ের ৫০ শতাংশই ব্যয় হয় বাসা ভাড়ায়। আইন না মেনে ঢাকার বাসা মালিকরা প্রতি বছর বাড়িভাড়া বৃদ্ধি করায় ভাড়াটিয়াদের নাভিশ্বাস উঠেছে। এমন অভিযোগ করেছে ভাড়াটিয়া পরিষদ নামের একটি সংগঠন। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর তোপখানা রোডের নির্মল সেন হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি বাহরানে সুলতান বাহার বলেন, ‘প্রচলিত আইন থাকলেও বাড়ি মালিকরা তা মানেন না। তারা তাদের খেয়াল খুশিমতো প্রতি বছর ভাড়া বাড়ান। বাড়ি মালিকদের আচরণেও ভাড়াটিয়ারা নাজেহাল হন। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের সঙ্গে বাড়িভাড়া বাড়ানো হয়। ’
সংবাদ সম্মেলনে সাত দফা দাবি তুলে ধরা হয়। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে-সরকার বা সিটি কর্পোরেশন নির্ধারিত ভাড়া বাসার প্রতিটি গেটে ঝুলিয়ে রাখতে হবে। সিটি কর্পোরেশন প্রকৃত ভাড়া জেনে হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণ ও আদায় করবে। বাড়িভাড়ার অবশ্যই চুক্তি থাকতে হবে। গ্যাস, পানি কিংবা বিদ্যুৎ সংযোগে কোনো অনিয়ম করা যাবে না। ব্যাচেলরদের জন্য ৩০ শতাংশ বাসা সংরক্ষণ করতে হবে এবং ভাড়াটিয়ার স্বার্থ সংরক্ষণে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।
আবীর রহমান চাকরি করেন বেসরকারী একটি প্রতিষ্ঠানে, তার মাসিক বেতন ১৮ হাজার টাকা, ভাড়া থাকেন রাজধানীর বনশ্রী এলাকায়। প্রতিমাসে তাকে ভাড়া দিতে হয় প্রায় সাড়ে ৯ হাজার টাকা। এছাড়া গ্যাস, পানি, বিদ্যুৎসহ আনুসঙ্গিক বিল রয়েছে। অর্থাৎ সব মিলিয়ে তার বেতনের অর্ধেকের বেশি অংশ মাসের শুরুতে বাড়ি ভাড়া বাবদ বাসা মালিকের হাতে তুলে দিতে হয়। এ সমস্যা ঢাকায় বসবাসরত সব ভাড়াটিয়াদের।
ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ বিষয়ক সংগঠন কনজুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের(ক্যাব)একটি সমীক্ষা থেকে জানা যায়, ২৫ বছরে রাজধানীতে বাড়ি ভাড়া বেড়েছে প্রায় ৪শ’ শতাংশ। একই সময় নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে ২শ’ শতাংশ। অর্থাৎ নিত্যপণ্যের দামের তুলনায় বাড়ি ভাড়া বৃদ্ধির হার প্রায় দ্বিগুণ। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]