• প্রচ্ছদ » সর্বশেষ » আবরারকে নিয়ে তসলিমা নসরিনের পোস্টের প্রতিক্রিয়ায় অনেকে বলেন, ‘তিনি বিজ্ঞানকেও ‘ধর্ম’ এ রুপ দিয়েছেন


আবরারকে নিয়ে তসলিমা নসরিনের পোস্টের প্রতিক্রিয়ায় অনেকে বলেন, ‘তিনি বিজ্ঞানকেও ‘ধর্ম’ এ রুপ দিয়েছেন

আমাদের নতুন সময় : 10/10/2019

দেবদুলাল মুন্না : বুয়েটছাত্র আবরার ফাহাদ ফেসবুকে ভারতবিরোধী একটি পোস্ট দেওয়ার কারণে তাকে‘ শিবির’ সন্দেহে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের একাংশ শেরেবাংলা হলে নৃশংসভাবে খুন করার পর দেশ থেকে নির্বাসিত লেখক তসলিমা নাসরিন গতকাল বৃহস্পতিবার একটি পোস্ট দেন। সেই পোস্টের গুরুতর আপত্তি জানিয়েছেন অনেকেই। গতকাল ছিল বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস। এদিনে মাহবুব মোর্শেদ তার প্রতিক্রিয়া জানান,‘ উন্মাদনা, একাকীত্ব, বিচ্ছিন্নতা ও উদ্ভট চিন্তা থেকে বাঁচাতে তসলিমা নাসরিনকে দ্রুত বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনুন।’ ব্রাত্য রাইসু লিখেছেন, ‘বিজ্ঞান কীভাবে মৌলবাদ বা ধর্ম তা তসলিমা নাসরিনের প্রতিক্রিয়াশীল লেখা থেকে বোঝা যাচ্ছে কি? মোমিন বান্দা তসলিমা বিজ্ঞানের এক জাগনা পীর, পুরোহিত কিংবা হুজুর বিশেষ।’
তসলিমা নাসরিন তার পোস্টে আবরার নামাজ পড়ুয়া ছিল সে বিষয় উল্লেখ করে বলেন, ‘মেধাবী হওয়াটা নিশ্চয়ই গুণ কিন্তু ২১ বছর বয়সে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়াটা তো গুণ নয়, বরং দোষ। বিজ্ঞানের বই পরীক্ষা পাশের জন্য পড়তো। নিশ্চয়ই বিজ্ঞান মনস্ক ছিলো।’
এর প্রতিক্রিয়ায় নিখিলেশ সান্যাল অমল লিখেছেন, ‘তসলিমা জানেন না যে বিজ্ঞানমনস্কতা ভালো। বিজ্ঞানবাদিতা ভালো নয়। বিজ্ঞানবাদিতা বিজ্ঞানকে ‘ধর্ম’ এ রুপ দেয়। তাই তসলিমাও একজন নিছক ধর্মীয় মৌলবাদীর মতো কথা বললেন। বিজ্ঞানমনস্কতার দিক থেকে বললেন না। এতো পড়ালেখা তার কম জানতাম না।’ চাণক্য বাড়ৈ প্রতিক্রিয়ায় জানান, একজন বিজ্ঞানী সবসময় বিজ্ঞানমনস্ক না-ও হতে পারেন। বিজ্ঞানমনস্কতা ভিন্ন ব্যাপার। তবে তিনি বিজ্ঞানবাদী হলে বিজ্ঞানকেও ‘ধর্ম’ এ রুপ দিয়েছেন। তসলিমার লেখার বরাতে তার বিশ্বাস, ‘আবরারকে মেরে ফেলার জন্য পেটানো হয়নি। আঘাত লেগেছে, মরে গেছে। আবরার ছিল নিব্রাস ইসলামদের মতোই( নিব্রাস হোলি আর্টিজানে হামলাকারীদের একজন)।’ এর প্রতিক্রিয়ায় নাজমুল আহসান নামে এক ফেসবুকব্যবহারকারী লেখেন, ‘তসলিমা নাসরিনের স্পর্ধা সীমা ছাড়িয়েছে। এতটা জঘন্য হয় কী করে মানুষ! এখন ভায়োলেন্স পর্যন্ত জাস্টিফাই করছেন, ভিকটিম ব্লেমিং করছেন, তাও সিম্পলি ভিকটিমের রিলিজিয়াস বিলিভের কারণে। এগুলো নিয়ে কথা বলার সময় এসেছে।’ নাজমুল আহসান ‘রিলিজিয়াস বিলিভ’ এর কথা আবরার ‘শিবির বা পাঁচওয়াক্ত’ নামাজ পড়তো সেকারণেই তসলিমা পক্ষ নিয়েছেন খুনিদের এটির প্রতি ইঙ্গিত করেছেন।
পিনাকী ভট্রাচার্য্য লিখেছেন, ‘হিন্দুত্ববাদকেই এরা বাংলাদেশে নাস্তিকতা বলে চালিয়েছে। এই উন্মাদ মহিলা বিদেশে মানবাধিকার কর্মী বলে পরিচিত। ভাগ্য ভালো এই অপদার্থটা ইংরেজিতে লিখতে পারেনা। তাই সে যে কী লিখে মানবতাবাদী হয়েছে সেইটা কেউ বুঝতে পারেনা। এইবার খোঁজ নেন কারা তসলিমাকে এই জায়গায় এনেছে? বাংলাদেশের বাম আর আওয়ামী পন্থী স্যেকুলার এস্টাবলিশমেন্টের লোকেরাই তো? ঠিক কিনা বলেন।’
লুলু আমেমানসুরা লিখেছেন, ‘নামাজ পড়া কেন ভাল গুণ হবেনা? নামাজি ব্যক্তি এটাকে পবিত্র কাজ ভেবেই পালন করে। ভারতবর্ষের সমাজ সংস্কারকেরা কি সবাই ধার্মিক ছিলেন ? অনেক ধার্মিক মানুষ কি বিজ্ঞানী হয়নি? ভারতের সব রকেট সায়েন্টিস্টরা কি নাস্তিক ? অথচ তারা কি চাঁদের বুকে হাটার প্ল্যান করছেন না? সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]